ন্যায়বিচার চেয়ে মুখ্যমন্ত্রীর দরবারে আবেশের পরিবার, সিসিটিভি ফুটেজ প্রকাশ

0

আবেশের শোকার্ত পরিবার। রয়েছেন আবেশের দিদিমা, মা।

পুলিশের অনুসন্ধানে আস্থা নেই আবেশের পরিবারের। তাই তাঁরা ন্যায়বিচারের আশায় শুক্রবার দ্বারস্থ হলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। মুখ্যমন্ত্রীও সত্য উদ্ঘাটনের আশ্বাস দিয়েছেন।

মৃত্যুর কারণ নিয়ে বিতর্ক চলছিল গত পাঁচ দিন ধরেই। অবশেষে কলকাতা পুলিশ ও লালবাজার বৃহস্পতিবার জানিয়ে দেয়, হত্যা নয়, আসলে ঘটেছিল দুর্ঘটনা। ১৭ বছর বয়সি আবেশের মৃত্যুর পেছনে নেই কোনও বন্ধুর ষড়যন্ত্র। জন্মদিনের পার্টির দিন আবেশ বেসামাল হয়ে যায়। পড়ে গিয়ে তার হাতের কাঁচের বোতলই ভেঙে ঢুকে যায় তার শরীরে আর তাতেই মৃত্যু। এমনকি বন্ধুদের মধ্যে এক জন সাহায্যের জন্য ১০০ নম্বর ডায়ালও করে। অন্যরা  লেখক অমিত চৌধুরীকে ডেকে আনে সাহায্যের জন্য। লেখক ও তাঁর স্ত্রী আহত আবেশকে নিয়ে যান হাসপাতালে। সানিপার্ক আবাসনের সিসিটিভি ফুটেজে এই সবের অনেকটাই দেখা গেছে। তার জন্যই পুলিশের তরফে তদন্তের রিপোর্টে জয়েন্ট সিপি ক্রাইম বিশাল গর্গ জানিয়েছেন,  আবেশকে ষড়যন্ত্র করে খুন করা হয়নি। পাশাপাশি তিনি এ-ও জানান, ময়না তদন্তের চূড়ান্ত ফলের জন্যও অপেক্ষা করা হচ্ছে।

কিন্তু আবেশের পরিবার আবেশের মৃত্যুর প্রথম দিন থেকেই খুনের অভিযোগ করে আসছেন। কলকাতা পুলিশের রিপোর্টের পরও তাঁরা একই অবস্থান নিচ্ছেন। আবেশের মায়ের অভিমত, এটাই যদি সত্যি হয় তা হলে এত দিন ধরে কেন আবেশের বন্ধুরা চুপ করেছিল? কীসের ভয় তাদের?

তাই ন্যায়বিচারের আশায় আবেশের পরিবারের ৫ জন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বাড়িতে গিয়ে তাঁর সঙ্গে দেখা করেন। তাঁদের মধ্যে ছিলেন আবেশের মা, মামা ও দিদিমাও। তাঁরা যে দুর্ঘটনার তত্ত্ব বিশ্বাস করেন না সে কথা মুখ্যমন্ত্রীকে পরিষ্কার জানান। আবেশের মামা জানান, মুখ্যমন্ত্রী তাঁদের আশ্বাস দিয়ে বলেছেন, কেউ দোষ করে থাকলে সে শাস্তি পাবেই। যা সত্যি, তা বেরিয়ে আসবেই।

ঘটনার সময়ের সিসিটিভি ফুটেজ

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন