অনাথ ও পরিত্যক্ত কৈশোরের ‘মা’ সুপর্ণা, কাজের স্বীকৃতিতে পেয়েছেন রাজ্য সরকারের পুরস্কার

0
suparna kantha

কৃষ্ণ আজাদ

একজন মানুষ সর্বসাধারণের কাছে গর্বের ধন হয়ে ওঠেন যখন তিনি মানুষের পাশে থাকেন। সরকারি চাকরি যাঁরা করেন তাঁদের অনেকের বিরুদ্ধেই অভিযোগ হল, ওঁরা সময়ের কাজ সময়ে করেন না, অনীহা অথবা উদাসীনতার কারণে। এ ব্যাপারে অতীত থেকে বর্তমান, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরা পর্যন্ত হস্তক্ষেপ করেছেন। কিন্তু মানুষের এই অভিযোগ দূর হয়নি। বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও সরকারি কর্মীদের নির্দেশ দিয়ে বলেছেন, মানুষের কাজ যেন আটকে না থাকে।

Loading videos...

সুপর্ণা কণ্ঠ একজন সরকারি কর্মী। রাজ্য স্বাস্থ্য দফতরের (West Bengal health department) অ্যাডোলেসেন্স হেলথ্‌ কাউন্সেলর (Adolescence Health Counsellor)। গত ১২ বছর ধরে সুপর্ণার কাজের ক্ষেত্র জয়নগর গ্রামীণ (Jaynagar Rural Hospital) হাসপাতাল। মাসের অনেকটা সময় কাজ করেন প্রত্যন্ত গ্রামগুলিতেও।

ব্রিটিশরা ভারতীয়দের হাতে শাসনক্ষমতা ছেড়ে দিয়ে স্বদেশে ফিরে গিয়েছে কয়েক দশক আগে। ব্রিটিশ আমলে বাংলাদেশের গ্রামগুলি শোচনীয় পরিস্থিতিতে ছিল। গ্রামকে গ্রাম মানুষ উজাড় হয়ে যেত মড়কে। গ্রাম্য নারীপুরুষ আধুনিক সুযোগসুবিধা থেকে বঞ্চিত ছিলেন। গ্রামজীবনের সঙ্গে ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে ছিল অশিক্ষা, দারিদ্র্য। সেই পরিস্থিতির পূর্ণাঙ্গ বদল আজও হয়নি।

শহর গ্রামের কাছাকাছি এসেছে। আর এতে বিপদও বেড়েছে। শহরের রঙিন হাতছানি অনেক গ্রামবাসীকে বিপথগামী করছে, জালে পড়ছেন গ্রামবাসীরা। ফলে নেশার উৎপাত, মেয়েদের প্রতি অবহেলা, অপরাধমূলক কাজ থেকে শুরু করে পুরোনো দিনের সমস্যাগুলোর সঙ্গে যুক্ত হয়েছে আরও নতুন নতুন বিপদ।

সুপর্ণাকে সরকারি স্বীকৃতি – ‘স্বাস্থ্য সম্মান’। নিজস্ব চিত্র।

নাবালিকা বিবাহ, নারীপাচার, নবজাত সন্তানকে বিক্রি করে দেওয়া, সন্তানকে ফেলে বাবা, মা দু’ জনেরই আর একটি বিয়ে করে পালিয়ে যাওয়ার মতো ঘটনা শুধু বাংলার নয়, সারা দেশেরই সমস্যা।

হেলথ্‌ কাউন্সেলরের চাকরিতে যোগ দিয়েই সরকারি কর্মী হিসেবে উল্লিখিত সমস্যাগুলো কোন পথে মোকাবিলা করা যায় তা নিয়ে ভেবেছেন সুপর্ণা। খাতায় কলমে নয়, এর বাস্তব সমাধানে সদা তৎপর সুপর্ণা। জয়নগর গ্রামীণ হাসপাতালের হেলথ্‌ কাউন্সেলর সুপর্ণা ইতিমধ্যে বেশ কিছু নাবালিকা বিবাহ রুখে দিয়েছেন, প্রসূতি-মৃত্যু প্রতিরোধে সচেতনতামূলক প্রচার চালিয়ে সফল হয়েছেন, স্কুলছুট ছেলেমেয়েদের ফের জীবনের মূল স্রোতে ফিরিয়ে এনেছেন, মাদকাসক্ত হয়ে পড়া নাবালকদের সুস্থ জীবন উপহার দিয়েছেন, অনাথ নাবালক, নাবালিকাদের বুকে জড়িয়ে সাহচর্য দিয়েছেন।

সুপর্ণা জানালেন, বয়স্ক পুরুষ ও মহিলাদের জীবনেরও নানা সমস্যার কথা শুনতে হয় তাঁকে। কাউন্সেলিংয়ের মাধ্যমে সমাধানের চেষ্টা করেন। কুলতলি ব্লকের বিস্তীর্ণ এলাকার মানুষ ভালোবাসেন সুপর্ণাকে।

আদতে কলকাতার মেয়ে সুপর্ণা লেখাপড়া করেছেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে। লেখাপড়ার বিষয় ছিল সোশিওলজি। এর পর কিছু দিন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থায় চাকরি করেছেন। পরে সরকারি চাকরির পরীক্ষা দিয়ে স্বাস্থ্য দফতরের কাজটা পেয়ে যান।

সুপর্ণার কথায়, “ছোটোবেলা থেকেই সেবামূলক কাজ করার খুব ইচ্ছে ছিল। এক সময় ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে সুযোগ পেয়ে পড়িনি। তার পরিবর্তে সোশিওলজি পড়লাম। এটা পড়ার অন্যতম প্রধান কারণ হল, আমার মনে হয়েছে এই বিষয়টা নিয়ে পড়লে ভবিষ্যতে সামাজিক কাজ করতে পারব। সেই চেষ্টা খানিক সফল হয়েছে বলতে পারেন।”

পিতৃ-মাতৃহীন অথবা বাবা-মা পরিত্যাগ করেছে যে সমস্ত ছেলেমেয়েকে, কাউন্সেলর হিসেবে সুপর্ণা তাদের পরিচর্যা করেন, নিছক সরকারি কর্মী হিসেবে দায় সারতে নয়। আপনি আচরি ধর্ম পালন করে কাজ না করা অথবা কর্তব্য পালনে উদাসীনতার যে বদনাম সরকারি কর্মীদের বিরুদ্ধে রয়েছে, স্বাস্থ্যকর্মী হিসেবে সুপর্ণা সেই বদনাম অনেকটা ঘুচিয়েছেন।

সুপর্ণার ছবি হাতে। নিজস্ব চিত্র।

কথাটা বাড়িয়ে বলা নয়। নতুন বছরের শুরুতেই অনাথ অথবা পরিত্যক্ত ছেলেমেয়েদের লাগাতার বায়না মেটাতে নিজের প্রায় শতাধিক ছবি বিলি করতে হয়েছে সুপর্ণাকে। সুপর্ণা বললেন, “স্কুল খুললেই আরও ৪০০ জন ছাত্রীকে আমার ছবি দিতে হবে। না হলে ওরা বায়না ছাড়বে না। ওদের মা নেই। ওরা বলেছে, দিদি তোমার একটা ছবি দাও। মায়ের মতো আপনজন তুমি।”

কাজের স্বীকৃতিতে সরকারি এবং বেসরকারি একাধিক পুরস্কার পেয়েছেন সুপর্ণা। রাজ্য নারী ও শিশু কল্যাণ দফতর সুপর্ণাকে পুরস্কৃত করেছে।

প্রত্যেক মানুষের জীবনেই বিভিন্ন সমস্যা থাকে। নিশ্চয়ই জীবনের নিয়মে নানা ঘাত-প্রতিঘাত সামলাতে হয় সুপর্ণাকেও। কিন্তু সামলান কী ভাবে?

সুপর্ণা বললেন, “আমি নিজেও মায়ের সঙ্গে থাকি। আমার মা আমার প্রিয়তম বন্ধু। মাকেই খুলে বলি মনের কথা। এতে ভার লাঘব হয়। এ ছাড়া সেলফ কাউন্সেলিং তো আছেই।”

আরও পড়ুন: ওলা, সুইগি, উবেরের প্রথম মহিলা চালক রূপার দিদিগিরি

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.