মিমি চক্রবর্তীর মুখে নতুন হাসি! এতটাই চকমকে কীসের ইঙ্গিত?

Mimi-Chakraborty
ফাইল ছবি

ওয়েবডেস্ক: যাদবপুর লোকসভা কেন্দ্রে প্রার্থী হিসাবে নাম ঘোষণার পরই জোরকদমে ভোটপ্রচারে নেমে পড়েছেন মিমি চক্রবর্তী। টলি-তারকা এই প্রথমবার ভোটের ময়দানে। মাঝে গায়ে প্রচণ্ড জ্বর নিয়ে প্রচারে খামতি দেননি তিনি। রবিবাসরীয় প্রচারেও ঝড় তুললেন পাটুলিতে। ওদিনে সোশ্যাল মিডিয়ায় তাঁর নতুন ‘হাসি’ নিয়ে তোলপাড় শুরু করেছেন নেটিজেনরা।

রাজ্যের মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস রীতিমতো তাঁর ছায়াসঙ্গী। পাশাপাশি কখনও ভাঙড়ের জাঁদরেল তৃণমূল নেতা আরাবুল ইসলাম তো কখনও টলিউডের তাঁরই কোনো সহকর্মী- মিমির প্রচার ধারেভারে পিছনে ফেলেছে তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বীদের। আগামী ১৯ মে, সপ্তম তথা শেষ দফায় ভোটগ্রহণ যাদবপুরে। স্বাভাবিক ভাবেই প্রচারের জন্য সব ক’টা সেকেন্ডকেই কাজে লাগাচ্ছেন মিমি।

হুডখোলা গাড়িতে দলীয় কর্মী-সমর্থকদের নিয়ে প্রচারে বেরিয়ে মিমি বলেন, “এত দিন পাশে ছিলেন, নতুন পথ চলাতে পাশেই থাকুন”।

ছবি: ফেসবুক থেকে

সম্প্রতি নিজের ফেসবুকে ‘স্মাইল অ্যান্ড শাইন’ শিরোনামে একটি হাসির মহূর্তের ছবি পোস্ট করেন মিমি। যা নিয়ে নেটিজেনরা নেমে পড়েন মন্তব্যের লড়াইয়ে। এক দিকে তাঁকে এগিয়ে যাওয়ার সমর্থন তো অন্য দিকে কটাক্ষের বাণে বিদ্ধ করে সে সব মন্তব্য। আবার কোনো কোনোটা এতটাই অশ্লীলতার সীমালঙ্ঘন করে যে, নিজেকে বিজেপি সমর্থক হিসাবে পরিচয় দিয়েও দেশের মেয়েদের সম্মানহানি না-করার আর্জি উঠে আসে কারও কারও মন্তব্যে।

[ এখানে ক্লিক করে পড়ুন মিমি চক্রবর্তীর একান্ত সাক্ষাৎকার ]

আবার জনৈক ভক্ত তাঁকে সমর্থন করে এটাও জানান- “খুব সুন্দর ছবি। বাংলা ছবির সম্পদ । নির্বাচনের জন্য আগাম শুভেচ্ছা রইল। জয় তোমার কেউ আটকাতে পারবে না। শুধু কোনো প্ররোচনায় পা না দিয়ে পরিসংখ্যান সহকারে উন্নয়নের কর্মকাণ্ড প্রচার করে যাও। মিমি চক্রবর্তী জিন্দাবাদ”। অর্থাৎ, মিমি না বললেও ওই হাসিতে যে রাজনীতিও এসে যায়, সেটাও স্পষ্ট হল।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.