কলকাতা: মডেল সনিকা সিং চৌহানের মৃত্যুর ঘটনায় অভিনেতা বিক্রম চ্যাটার্জির সংক্রান্ত তদন্তে কলকাতা পুলিশ ‘ধীরে চল’ নীতি নিয়েছে, এমন অভিযোগ উঠছিল নানা মহল থেকে। তার জেরেই হয়তো ঘটনায় একমাস পার করে বিক্রমের বিরুদ্ধে মামলার ধারা পালটালো পুলিশ। প্রাথমিক ভাবে তাঁর বিরুদ্ধে অবহেলার অভিযোগ দায়ের করেছিল পুলিশ। যা থেকে আগাম জামিন নিয়ে নেন ওই অভিনেতা। মঙ্গলবার সেই ধারা পালটে, তাঁর বিরুদ্ধে অনিচ্ছাকৃত খুনের মামলা দায়ের করা হল আলিপুর কোর্টে। এই ধারায় দোষী প্রমাণিত হলে ১০ বছর জেল হবে অভিনেতার। আগের ধারার ক্ষেত্রে তা হতে পারত ২ বছর।

গত ২৯ এপ্রিল ভোর রাতে পার্টি সেরে গাড়ি করে ফিরছিলেন বিক্রম চ্যাটার্জি ও মডেল সনিকা সিং চৌহান। গাড়ি ড্রাইভ করছিলেন বিক্রম। রাসবিহারী অ্যাভিনিউতে পথদুর্ঘটনায় মৃত্যু হয় সনিকার। আহত হন বিক্রমও। ৪ মে হাসপাতাল তেকে ছাড়া পেয়ে আগাম জামিন নেন তিনি। তবে তা নিয়ে বিতর্ক তুঙ্গে ওঠে শহর জুড়ে। কারণ কিছুদিন আগেই যখন গাড়ি দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছিল গায়ক কালিকাপ্রসাদের। তখন তাঁর ড্রাইভারের বিরুদ্ধে অনিচ্ছাকৃত খুনের মামলা দায়ের করা হয়েছিল তাঁর ড্রাইভারের বিরুদ্ধে। মাস চারেক জেল খেটে সম্প্রতি জামিনে মুক্ত হয়েছেন তিনি।

প্রভাবশালী মহলের চাপে বিক্রমের বিরুদ্ধে হালকা ধারা দিয়েছে পুলিশ, এমন অভিযোগ ওঠে। বিক্রম ও সনিকার বন্ধুদের মধ্যে তীব্র বিতর্ক চলতে থাকে সোশাল মিডিয়ায়। এর মধ্যে দু’বার বিক্রমের জবানবন্দি নেয় পুলিশ। সনিকার ৪জন বন্ধু গোপন জবানবন্দি দেন আদালতে। জবানবন্দি দেন সনিকা  ও বিক্রমের বন্ধু অভিনেতা অনিন্দ্য চট্টোপাধ্যায়। এছাড়া প্রত্যক্ষদর্শীদের জিজ্ঞাসাবাদ ও অন্যান্য পুলিশি তদন্তে উঠে আসে, ঘটনার সময় ঘণ্টায় ৯৫কিমিরও বেশি গতিতে গাড়ি চালাচ্ছিলেন বিক্রম। এছাড়া বিক্রমের জবানবন্দিতেও নানা অসঙ্গতি মেলে। বিক্রম বলেন, সেরাতে তিনি মদ খেয়ে থাকলেও মাতাল ছিলেন না। যদিও বিক্রমের রক্ত পরীক্ষার রিপোর্ট এখনও প্রকাশ করেনি পুলিশ।

নতুন ধারায় মামলা হওয়ার ফলে এখন বিক্রমকে গ্রেফতার করতে পারে পুলিশ। তবে সূত্রের খবর, এ ব্যাপারে পুলিশ তাড়াহুড়ো করবে না। বিক্রমকে ফের আগাম জামিন নেওয়ার সুযোগ করে দেওয়া হতে পারে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here