পানীয় জলের পর জোকা সহ সংযোজিত পুর এলাকায় নিকাশি মাষ্টার প্ল্যানেও এডিবির ঋণ পেতে চলেছে পুরসভা। প্রাথমিক ভাবে কলকাতা পুরসভাকে ৯৫০ কোটি টাকা ঋণ দিতে সম্মতি দিয়েছে এডিবি।  এর আগে জোকা -ঠাকুর পুকুর এলাকায় পানীয় জলের প্রকল্পে ১২৫০ কোটি টাকা ঋণ অনুমোদন করেছে এডিবি।   জোকার নিকাশি মাষ্টার প্ল্যানের  প্রস্তুতির কাজ শেষ করেছে পুরসভা।

জোকার প্রকল্পও ছাড়া নিকাশি সমস্যার সমাধানে প্রকল্প নেওয়া হচ্ছে রাজডাঙ্গা,  আলিপুর বডিগার্ড লাইন, খিদিরপুর ও গল্ফগ্রিন এলাকায়।  এর ফলে উপকৃত হবেন ৭৪,  ৭৬, ৭৭, ৭৮, ৯৪, ৯৫,১০৯, ১১০ ওয়ার্ডের বাসিন্দারা।

মোট ৭৫০ কোটি টাকার এই প্রকল্পে  জোকা ও সংযুক্ত এলাকায়  পাইপ লাইন,  নিকাশি ব্যাবস্থা তৈরি করা হবে।  কসবা ও রাজডাঙ্গা এলাকাতেও  নিকাশি ব্যবস্থা  তৈরি করা হচ্ছে  যাতে ১০০ কোটি টাকা খরচা হবে পুরসভার।  এর ফলে ১০৯ ও ১১০ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দারা বর্ষায় জল জমা নিয়ে যে সমস্যায় পড়েন, তা দূর হবে বলে জানিয়েছেন মেয়র।

ঠাকুরপুকুর-বেহালার কলাগাছিয়া  ক্যানেল থেকে চোরিয়াল খাল পর্যন্ত নিকাশি ব্যবস্থা তৈরি করা হবে। এই ব্যবস্থায় জল চোরিয়াল খালে গিয়ে পড়বে।  এর ফলে ১২৬ ও ১২৭ নম্বর ওয়াডে বর্ষায় জল জমবে না বলে বলে জানিয়েছেনম মেয়র শোভন চট্টোপাধ্যায়।  খিদিরপুর,  মোমিনপুর ও বডিগার্ড লাইন এলাকা অল্প বৃষ্টিতে জলে টইটম্বুর হয়ে পড়ে।  এই সব এলাকায় জল জমা বন্ধ করতে, চিড়িয়াখানার কাছে পাম্পিং স্টেশন হবে । গল্ফগ্রিন এলাকার ৯৪ নম্বর ওয়ার্ডেও নিকাশি ব্যবস্থা ও খাল কাটার কাজ শুরু হবে।।

এই যাবতীয় কাজ ২০১৭ সালে শুরু হয়ে ২০১৯-এর মধ্যে শেষ হবে বলে এদিন জানিয়েছেন শোভনবাবু।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here