মালদা: ৩৯ সিটের বিমান পরিষেবা পেতে পারে মালদা। এই খবর শোনার পরেই আশায় বুক বাঁধছে মালদাবাসী। মালদায় বিমানবন্দর তৈরির কাজ চলছে জোরকদমে। রানওয়ে তৈরির জন্য জমি অধিগ্রহণের কাজও শুরু হয়েছে। সোমবার এই বিমানবন্দর তৈরির কাজ পরিদর্শন করেন শুভেন্দু অধিকারী।

১৯৬২ সালে এয়ারপোর্ট অথরিটি অফ ইন্ডিয়া মালদায় বিমানবন্দর গড়ে তোলে। কালক্রমে পরিচর্যার অভাবে ধীরে ধীরে বন্ধ হয়ে যায় মালদা বিমানবন্দর। নিরাপত্তার অভাবে রাতের অন্ধকারে চুরি হয়ে যায় বিমানবন্দরের একাধিক সামগ্রী। দখল হতে থাকে বিমানবন্দরের জমি। স্থানীয় মানুষজন বিমানবন্দরে চাষাবাদ শুরু করেন। প্রথমে সাংসদ আবু হাসেম খান চৌধুরী এবং পরে মন্ত্রী থাকাকালীন কৃষ্ণেন্দু নারায়ণ চৌধুরীও বিমানবন্দরটি চালু করার জন্য উদ্যোগী হয়েছিলেন।

অবশেষে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় মালদা, বালুরঘাট ও কোচবিহারে বিমান পরিষেবা চালু করার কথা ঘোষণা করেন। ছোটো বিমান ওঠানামার মতো রানওয়ে তৈরির কাজ শুরু করে ঠিকাদার সংস্থা। পরে রাজ্য সরকারের তরফ থেকেই মালদায় বড়ো বিমান চলাচলের মতো রানওয়ে তৈরির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। রাজ্য সরকারের নির্দেশ পেয়েই মালদা বিমানবন্দরের পশ্চিম প্রান্তে জমি অধিগ্রহণ শুরু করে এয়ারপোর্ট অথরিটি।

স্থানীয় প্রশাসনের আশা, মালদায় বিমানবন্দর চালু হলে বাণিজ্যিক ভাবে প্রচুর উন্নতি হবে জেলার। জেলায় পর্যটকদের আনাগোনাও বাড়বে। এয়ারপোর্ট অথরিটি ২০১৯ সালের ডিসেম্বরের মধ্যেই বিমানবন্দর তৈরির কাজ শেষ হওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী। আপাতত শহরের বিমান ওঠানামা করবে, এই আশাতেই বুক বাঁধছে শহরবাসী।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here