কলকাতা: গত ১৭ জানুয়ারি ভাঙড়ে আন্দোলনকারীদের ওপর গুলি পুলিশের ভ্যান থেকেই চালানো হয়েছিল বলে দাবি করলেন আন্দোলনের সঙ্গে যুক্ত এক সংগঠনের নেতা। সেই সঙ্গে রাতের অন্ধকারে দুষ্কৃতীরা গ্রামবাসীদের ওপর অত্যাচার চালাচ্ছে বলেও দাবি করেন তিনি।

ভাঙড় কাণ্ডের প্রতিবাদে শনিবার প্রেস ক্লাবে একটি সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করা হয়। উপস্থিত ছিলেন আন্দোলনরত চারটি সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। সাংবাদিক সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন কুশল দেবনাথ, পার্থসারথি রায়, মিতালি বিশ্বাস, অমিতাভ চক্রবর্তী, দেবজিৎ দত্ত প্রমুখ। নিজেকে গুলি চালানোর ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী দাবি করে দেবজিৎবাবু বলেন, “সে দিন পুলিশের ভ্যান থেকেই গুলি চলেছিল, কিন্তু গুলি পুলিশ চালিয়েছিল কি না তা জানি না। আলমগিরের গলায় গুলি লাগে এবং তার মৃত্যু হয়।”

রাতের অন্ধকারে দুষ্কৃতীরা গ্রামবাসীদের ওপর অত্যাচার করছে, এই অভিযোগ করে একটি ভিডিও প্রকাশও করেন সংগঠনের নেতারা। সিঙ্গুর-নন্দীগ্রাম আন্দোলনের সঙ্গে এই আন্দোলনের বিস্তর ফারাক রয়েছে এই দাবি করে শঙ্কর দাস বলেন, “সিঙ্গুর-নন্দীগ্রাম আন্দোলনে সরকার আন্দোলনকারীদের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চেয়েছিল কিন্তু আন্দোলনকারীরা কোনো কর্ণপাত করেনি। এখানে আন্দোলনকারীরা সরকারের সঙ্গে আলোচনায় বসতে চাইছে, কিন্তু সরকার কোনো কথা শুনছে না।” সেই সঙ্গে তাঁদের আরও দাবি, শনিবার পাওয়ার গ্রিড সক্রান্ত বিজ্ঞাপন বিভিন্ন সংবাদপত্রে বেরিয়েছে। তার মানে কোনো মতেই এই প্রকল্প বাতিল করা হবে না।

ভাঙড়ের গ্রামে ঢুকে পুলিশ ভাঙচুর করছে বলে অভিযোগ করেন আর এক নেতা। এর পরিপ্রেক্ষিতেই মুখ্যমন্ত্রীর শুক্রবারের মন্তব্যের সমালোচনা করে ওই নেতা বলেন, “মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন সরকারের সম্পত্তি নষ্ট করলে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে, কিন্তু সরকার যদি সম্পত্তি নষ্ট করে তা হলে কে ক্ষতিপূরণ দেবে সেটা তো কিছু বলছেন না।”  

এই সম্মেলনেই সোমবার ভাঙড় কাণ্ডের প্রতিবাদে মহামিছিলের ডাক দেয় সংগঠনগুলি।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here