দেড় বছরের শিশুকে ভুল চিকিৎসার অভিযোগ চিত্তরঞ্জন সেবা সদনের বিরুদ্ধে

0
122

কলকাতা : মুখ্যমন্ত্রী খোদ রাজ্যের হাসপাতালগুলোকে বার বার সতর্ক করে দেওয়ার পরও চিকিৎসায় গাফিলতি আর ভুল চিকিৎসার অভিযোগ বার বার উঠছে। এ বার অভিযোগ চিত্তরঞ্জন সেবা সদনের বিরুদ্ধে। একটি শিশুকে ভালো করে পর্যবেক্ষণ না করার অভিযোগ। শিশুটির নাম আলফাজ খান। বাড়ি দক্ষিণ ২৪ পরগনার মহেশতলায়। বাড়িতে খাওয়ার সময় গলায় প্লাস্টিক আটকে যায় আলফাজের। এর পর তাকে মহেশতলায় এক জন ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়া হয়। তিনি আলফাজকে দেখামাত্রই কলকাতার বড়ো কোনও হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন। এর পরই তাকে চিত্তরঞ্জন সেবা সদনে নিয়ে আসা হয়। চিত্তরঞ্জন হাসপাতালের ডাক্তারা শিশুটিকে দেখার পর জানান, আলফাজের গলায় সর্দি জমে আছে। তার বুকে কফ জমেছে। প্রাথমিক চিকিৎসা করে নেবুলাইজার আর সামান্য কিছু ওষুধ দিয়ে তাকে ছেড়ে দেওয়া হয়।

বাড়ি নিয়ে যাওয়ার পর আলফাজের শারীরিক অবস্থার আরও অবনতি হয়। এর পর তাকে এসএসকেএম হাসপাতালের ইএনটি বিভাগে ভর্তি করেন পরিবারের লোকজন। সেখানে আলফাজের বুকের এক্সরে করা হয়। তাতেই ধরা পড়ে আলফাজের শ্বাসনালীর কাছে একটি প্লাস্টিক আটকে আছে। তার ফলে অক্সিজেন পৌঁছোতে পারছে না ফুসফুসে। তার পরই শনিবার গভীর রাতে শুরু হয় অস্ত্রোপচার। শ্বাসনালী থেকে একটি লাল রঙের কাপড়ের টুকরো আর প্লাস্টিক বের করা হয়। তার পর সুস্থ হয়ে ওঠে আলফাজ।

এসএসকেএম হাসপাতালের ইএনটি বিভাগের ডাক্তাররা জানিয়েছেন, আর একটু দেরি হলে আলফাজকে বাঁচানো যেত না।এই বিষয়ে এসএসকেএম হাসপাতালের ডিরেক্টর মঞ্জু বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “যুদ্ধকালীন তৎপরতার সঙ্গে চিকিৎসা করে হাসপাতালের ইএনটি বিভাগের ডাক্তাররা। এখন শিশুটি ভালো আছে। তাকে ছুটি দেওয়া হয়েছে।”

চিত্তরঞ্জন সেবা সদনের প্রিন্সিপাল সুতপা গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, “রোগীর পরিবারের তরফে একটি অভিযোগ পেয়েছি। পুরো ঘটনা তদন্ত করে দেখা হবে।”

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here