Amit Shah

ওয়েবডেস্ক: পুরুলিয়ার সভা থেকে পশ্চিমবঙ্গের তৃণমূল সরকার ও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে তীব্র ভাষায় কটাক্ষ করলেন বিজেপি সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ। তিনি বলেন, “পুরুলিয়ার এই আওয়াজ পৌঁছে দিন কলকাতায়”।

রাজ্যের একাধিক ইস্যু উঠে আসে অমিতের বক্তব্যে। চিটফান্ড থেকে শুরু করে অনুপ্রবেশ বা শিল্পায়নের প্রসঙ্গ তুলে রাজ্য সরকারকে ভর্ৎসনা করেন তিনি। বলেন, বাংলার সব কারখানা বন্ধ হয়ে গিয়েছে। বাংলায় এখন বোমা শিল্প ছাড়া কিছু নেই। রাজ্যের উন্নয়নে কেন্দ্র টাকা দিয়েছিল। কিন্তু রাজ্য সেই টাকা খরচ করেনি তৃণমূল সরকার। সেই টাকা খেয়ে নিয়েছে শাসক দলের সিন্ডিকেট।

অনুপ্রবেশ প্রসঙ্গে অমিত তুলনায় টেনে নিয়ে আসেন ত্রিপুরাকে। তাঁর প্রশ্ন, ‘কী ভাবে বাংলাদেশ থেকে পশ্চিমবঙ্গে ঢুকছে অনুপ্রবেশকারীরা। ত্রিপুরাতেও বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীরা ঢুকছিল। ত্রিপুরাবাসী সেকানকার সরকার বদলে দিয়েছে। বাংলাতেও পরিবর্তনের দরকার’।

আগামী লোকসভা ভোটকে পাখির চোখ করে বিজেপি-বিরোধী জোট গঠনে বাড়তি উদ্যোগ নিয়েছেন তৃণমূলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এ বিষয়েও শ্লেষ ঝরে পড়ে বিজেপি সভাপতির বক্তব্যে। তিনি বলেন, “কেন্দ্রের ক্ষমতা কুক্ষিগত করতে মমতা এখন ফেডারেল ফ্রন্ট নিয়ে দৌড়ঝাঁপ করছেন। তবে আগে উনি বাংলা সামলান তারপর কেন্দ্রের কথা ভাববেন। আগে নিজের পায়ের তলার মাটি শক্ত করা প্রয়োজন। আপনাজদের উদ্দেশে বলছি, এই তৃণমূল সরকারকে উপড়ে ফেলুন। ২০১৯-এর লোকসভা ভোটে তৃণমূলের ঘুম ছুটিয়ে দেব”।

এ দিন পুরুলিয়ার ওই জনসভা থেকে অমিত তুলে ধরেন সন্ত্রাসের বিষয়টিকেও। বাংলায় সন্ত্রাসের রাজনীতি বেমানান বলেই তিনি মনে করেন। আবার চিটফান্ডের প্রসঙ্গ উত্থাপন করায় সিবিআই তদন্তেও বাড়তি মাত্রা যোগ হল। অমিত বলেন, “এই সরকার চিটফান্ডের সরকার। সাধারণ মানুষকে সর্বস্বান্ত করে ছেড়েছে তৃণমূল”।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here