aksah

কলকাতা: অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের পথ ধরেই সংসদীয় রাজনীতিতে আসতে চলেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আর এক ভাইপো আকাশ। সব কিছু ঠিকঠাক চললে, হয়তো মহেশতলা বিধানসভার উপনির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেসের প্রার্থী হতে পারেন তিনি।

মহেশতলার বিধায়ক কস্তুরী দাস সম্প্রতি প্রয়াত হয়েছেন। স্বাভাবিক ভাবেই পঞ্চায়েত এবং আগামী লোকসভা ভোটের কথা মাথায় রেখে ওই আসনটিতে উপনির্বাচন ঝুলিয়ে রাখতে চাইছে না তৃণমূল। ফলে যত তাড়াতাড়ি সম্ভব ওই আসনটি উপনির্বাচন সেরে ফেলতে চায় দল। দলীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, সম্ভবত আকাশকে ওই আসনে প্রার্থী করা হতে পারে।

যদিও এ ব্যাপারে মমতার কতটা সদিচ্ছা রয়েছে বা তিনি এখনই আকাশকে রাজনীতিতে নিয়ে আসতে চাইছেন কি না, সে নিয়ে কিছুই জানা যায়নি। স্রেফ কালীঘাটে নিয়মিত যাতায়াত রয়েছে এমন কিছু নেতার কাছে এখন এই বিষয়টিই আলোচ্য হয়ে উঠেছে।

অতীতে এই আকাশ কর্তব্যরত পুলিশকর্মীকে থাপ্পড় মারার অভিযোগে জেলে পর্যন্ত গিয়েছিলেন। বোটানিক্যাল গার্ডেনে সূর্য ডুবে যাওয়ার পরেও তিনি ঢুকতে চাওয়ায় বচসা বাঁধে পুলিশের সঙ্গে। তিনি পুলিশকে বলেন, ‘আমাকে চেনো? আমি কালীবাবুর ছেলে। মুখ্যমন্ত্রীর ভাইপো!’ তবে সরকারি কর্মীকে কাজে বাধাদানের অপরাধে তাঁকে রেয়াত করেননি মমতা। আইন মেনেই ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দিয়েছিলেন পুলিশকে। সে সময় কলকাতা পুলিশের স্পেশাল কমিশনার শিবাজী ঘোষ বলেছিলেন, মুখ্যমন্ত্রী নিজেই আকাশকে গ্রেফতারের নির্দেশ দিয়েছেন।

তবে বছর তিরিশের এই যুবক এখন অনেকটাই পরিণত। তাঁকে প্রায়শই দেখা যায় দাদা অভিষেকের অফিস সামলাতে। স্বাভাবিক ভাবে রাজনৈতিক পরিমণ্ডলে থাকতে থাকতে তাঁর যে একটা পরিবর্তন এসেছে, তা প্রত্যক্ষদর্শীরা বলে থাকেন।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন