কলকাতা: শিক্ষা দফতরের অষ্টমশ্রেণির পাঠ্য পুস্তকে চার বছর আগেই ঠাঁই পেয়েছে বাংলার সোনার মেয়ে স্বপ্না বর্মনের লড়াকু জীবনী।

এশিয়ান গেমসে ২০১৮-য় হেপ্টাথলনে ভারতের হয়ে সোনা জিতে নেওয়ার পর জলপাইগুড়ির স্বপ্না বর্মনকে আগ্রহ তুঙ্গে। বিভিন্ন মহল থেকে আসছে শুভেচ্ছা এবং অভিনন্দন ও প্রশংসা। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় স্বপ্নার এই সাফল্যকে কুর্নিশ জানিয়ে ১০ লক্ষ টাকা আর্থিক পুরস্কার এবং তাঁর জন্য সরকারি চাকরির ঘোষণা করেছেন। যদিও এর পরেই কয়েকটি মহল থেকে রাজ্য সরকারের ভূমিকা নিয়ে সমালোচনা চলছে। স্বপ্নার স্বপ্ন পূরণে রাজ্যের তরফে পর্যাপ্ত উৎসাহদানের অভাব ছিল বলেই তাদের দাবি। যদিও রাজ্য সরকার কিন্তু চার বছর আগেই স্বপ্নার প্রতিভা ও দক্ষতায় আশ্বস্ত হয়ে তাঁর জীবনীকে ঠাঁই দিয়েছে পাঠ্যপুস্তকে।

চার বছর আগেই রাজ্যের শিক্ষা দফতর অষ্টম শ্রেণির পাঠ্য স্বাস্থ্য ও শারীর শিক্ষায় তুলে ধরেছে স্বপ্নার লড়াকু জীবনীকে। সে সময় এশিয়ান অ্যাথলেটিস্ক মিটে হেপ্টাথলনে সোনা জিতেছিলেন স্বপ্না। যে কারণে অষ্টম শ্রেণির ওই পাঠ্য পুস্তকে পড়ুয়াদের সামনে তুলে ধরা হয়েছিল স্বপ্নার ধাপে ধাপে নিজের প্রতিভা ও দক্ষতা প্রকাশের ঘটনাবলি।


আরও পড়ুন: এ বার নির্বাচন কমিশনের নজরে এশিয়ান গেমসে সোনাজয়ী স্বপ্না বর্মন

ওই অধ্যায়ে স্বপ্নাকে রাজ্য সরকারের বঙ্গরত্ন সম্মান দেওয়ার কথাও উল্লেখ করা হয়েছে। তুলে ধরা হয়েছে কী ভাবে আর্থিক বাধা কাটিয়ে উঠে স্বপ্না সাফল্যের শীর্ষে পৌঁছেছেন।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন