বিজেপি রাজ্য নেতৃত্বের উপর ক্ষুব্ধ বৈশাখী

0
ফাইল ছবি

ওয়েবডেস্ক: বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর কলকাতার প্রাক্তন মেয়র এবং রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী শোভন চট্টোপাধ্যায়কে সংবর্ধনা দিচ্ছে বিজেপি। কিন্তু সেই অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণপত্রে শোভনের ‘অসময়ের বন্ধু’ বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়ের নাম না-থাকায় ‘সুন্দর পরিবেষ কলুষিত হল’ বলেই মনে করছেন বৈশাখী স্বয়ং।

তিনি প্রথমে জানান, “আমি এ ব্যাপারে কিছু জানতাম না। কয়েকজন সাংবাদিক আমাকে বলেন, এ দিনের অনুষ্ঠানে আমি যাচ্ছি কি না। তখন আমি বিষয়টি নিয়ে খোঁজ নিই। পদের উচ্চাকাঙ্ক্ষা নেই। কিন্তু আমাকে আমন্ত্রণ না জানানোয় নিজেকে আপমানিত মন হচ্ছে। মনে হচ্ছে, আমাকে কেউ কেউ ভালো চোখে দেখছেন না। ফলে এমন পরিস্থিতিতে কাজ করা সম্ভব নয়”।

পরে তিনি নিজের মত পরিবর্তন করেন। তিনি বলেন, “আমি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের সঙ্গে কথা বলি। শোভনবাবুকে সংবর্ধনা দেওয়া হচ্ছে, আমারও ভালো লাগার কথা। কিন্তু আমার যেটা ওনাদের জানানোর প্রয়োজন ছিল জানিয়েছি, আমার যেখানে প্রতিবাদ করার প্রয়োজন ছিল, করেছি। কিন্তু সুন্দর পরিবেশটা কলুষিত হয়েছে। তবে আমার থেকে ছোটো একটি ছেলে দায়িত্বে ছিলেন, তাঁর উপর উষ্মা ধরে রাখা ঠিক নয়। ফলে আমি যাচ্ছি। কিন্তু পরবর্তীকালে এ ভাবে কাজ করা যায় কি না, সেটা ভেবে দেখছি”।

জানা গিয়েছে, বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে বৈশাখীর অভিযোগের পরই অতিথি তালিকায় তাঁর নাম যোগ করা হয়। এ প্রসঙ্গে বৈশাখী জানান, “এক কথায় আমাকে অপমান করা হয়েছে। জুতো মেরে গোরু দানে আমি বিশ্বাসী নই। গোটা ঘটনায় আমি খুব ব্যথিত”।

তবে শোভনের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে বৈশাখীর নাম না থাকা নিয়ে বিজেপির কোনো রাজ্য নেতা স্পষ্ট করে কিছু বলেননি। বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, “আমরা জানি যেমন ভাত-ডাল, তেমনই শোভনদা-বৈশাখীদি“। এমনকী শোভনেরও কোনো মন্তব্য এখনও পাওয়া যায়নি। কিন্তু এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে বৈশাখী যে ভাবে কড়া বাক্যবাণ নিক্ষেপ করেছেন, তাতে তাঁর সঙ্গে গেরুয়া শিবিরের রাজনৈতিক সম্পর্কের স্থায়িত্ব নিয়ে প্রশ্নচিহ্ন উঁকি দিচ্ছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.