কলকাতা: গত পুরসভা ভোটেই মিলেছিল ইঙ্গিত। তাৎক্ষণিক ভাবে উঠে আসা বিজেপিকে সরিয়ে ফের রাজ্য-রাজনীতিতে প্রাসঙ্গিক হয়ে উঠছে বামফ্রন্ট। এ বার বালিগঞ্জ বিধানসভা উপনির্বাচনে চমকপ্রদ উত্থান ঘটল বামেদের।

শনিবার বালিগঞ্জ বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনের গণনা। দেখা যায়, প্রায় ৩৬ শতাংশ ভোট পেয়েছেন সিপিএমের প্রার্থী সায়রা শাহ হালিম। বামনেতা তথা বিশিষ্ট চিকিৎসক ফুয়াদ হালিমের স্ত্রী, বিধানসভার প্রাক্তন স্পিকার প্রয়াত হাসিম আবদুল হালিমের পুত্রবধূ তিনি। তাঁর আরেক পরিচিতি অভিনেতা নাসিরউদ্দিন শাহের ভাইঝি হিসেবে।

এর আগে ফুয়াদ অথবা পরিচিতদের হয়ে ভোট প্রচারে নেমেছিলেন। এমনকী নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন এবং জাতীয় নাগরিকপঞ্জি নিয়ে আন্দোলনেরও একেবারে প্রথম সারিতে ছিলেন। তবে ভোটের ময়দানে এই প্রথম বার সায়রা।

কলকাতা-সহ বিভিন্ন পুরসভার নির্বাচনে শতাংশের হিসেবে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছিল বামেরা। তাহেরপুর পুরসভার দখল নিয়েছে সিপিএম। এ বার বালিগঞ্জের উপনির্বাচনেও বজায় রইল সেই ধারা। ২০২১ বিধানসভা ভোটে এই কেন্দ্রের সংযুক্ত মোর্চার সিপিএম প্রার্থীর প্রাপ্ত ভোটের হার ছিল মাত্র ৫.৬১ শতাংশ। অর্থাৎ, ভোটের হার বেড়েছে ছ’গুণেরও বেশি। সেই জায়গায় অনেকটাই পিছিয়ে গেল বিজেপি।

অন্য দিকে, তৃণমূল প্রার্থী বাবুল সুপ্রিয়র ঝুলিতে গিয়েছে প্রায় ৪৮ শতাংশ ভোট। তাৎপর্যপূর্ণ ভাবে গায়ক-অভিনেতা জিতলেও তৃণমূলের মার্জিনে বড়োসড়ো ধস বালিগঞ্জে। কারণ, ২০২১ বিধানসভা ভোটে এই কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী প্রয়াত সুব্রত মুখোপাধ্যায় পেয়েছিলেন ৭০ শতাংশেরও বেশি ভোট।

যদিও ভোটের হার কমে যাওয়ার নেপথ্যে বেশ কিছু যুক্তিও তুলে ধরছেন শাসক দলের নেতারা। তাঁদের মতে, উপনির্বাচনে ভোট কম পড়েছে। একে তো গরমের জন্য অনেকেই ভোট দিতে আসেননি, আবার অন্য দিকে, উপনির্বাচন নিয়ে অনেকেই ততটা আগ্রহী নন। যে কারণে ব্যবধান কমেছে বাবুলের।

আরও পড়তে পারেন:

আসানসোল-বালিগঞ্জে বিপুল সমর্থন, ধন্যবাদ জানালেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

লাইভ: আসানসোলে রেকর্ড মার্জিনে জয়ের সম্ভাবনা শত্রুঘ্নর, বালিগঞ্জে জয়ী বাবুল

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন