Teacher
প্রধান শিক্ষক পরীক্ষিৎ কামিল্যা।
ইন্দ্রাণী সেন

বাঁকুড়া: ২০১৮ সালে জেলায় ‘শিক্ষারত্ন’ সম্মান পাচ্ছেন পরীক্ষিৎ কামিল্যা। পরীক্ষৎবাবু বাঁকুড়ার জঙ্গলমহলের রাইপুরের মুড়াজোড় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক। আগামী ৫ সেপ্টেম্বর কলকাতার নজরুল মঞ্চে শিক্ষক দিবসের অনুষ্ঠানে রাজ্য সরকারের তরফে শিক্ষকতার শ্রেষ্ঠ সন্মান তুলে দেবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

২০১১ সালে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্বে তৃণমূল কংগ্রেস রাজ্যে ক্ষমতায় আসার পর রাজ্য সরকার শ্রেষ্ঠ শিক্ষকদের সন্মানার্থে ‘শিক্ষারত্ন’ পুরস্কারের সূচনা করেন। প্রতি বছর শিক্ষক দিবসের দিন রাজ্য সরকারের তরফে এই সন্মান প্রদান করা হয়। ইতিমধ্যে বাঁকুড়ার জঙ্গল মহলের দু’জন শিক্ষক এই পুরস্কার পেয়েছেন। তাদের মধ্য অন্যতম সারেঙ্গা ব্লকের নেতুরপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সাধনচন্দ্র মণ্ডল।এই বছর রাইপুরের মুড়াজোড় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক এই পুরস্কার পাচ্ছেন। এই খবর জঙ্গলমহলে পৌঁছানোর সঙ্গে সঙ্গেই খুশি স্কুল পড়ুয়া ও মুড়াজোড় প্রাথমিক বিদ্যালয়ের অনান্য শিক্ষক-শিক্ষিকারা।

‘শিক্ষারত্ন’প্রাপ্ত জঙ্গলমহলের শিক্ষক সাধন মণ্ডল বলেন, “শিক্ষক হিসাবে পরিক্ষীৎবাবু একজন অসাধারণ ব্যক্তিত্ব। শিক্ষকতার পাশাপাশি তিনি একজন প্রকৃতি প্রেমিক ও সংস্কৃতি সম্পন্ন ব্যাক্তিত্ব। স্কুলের পড়ুয়া অভিভাবক-সহ এলাকার প্রত্যেকটি মানুষের সঙ্গে ওনার আত্মীয়তার সম্পর্ক । ছাত্রছাত্রীদের সন্তানস্নেহে মানুষ করে চলেছেন । তাঁর বিদ্যালয় নির্মল বিদ্যালয় পুরস্কার পেয়েছে। পরীক্ষিৎবাবুর এই সাফল্যে খুশী জঙ্গলমহলের মানুষও”।

Teacher
১৯৯৯ সালে বর্তমান স্কুলের দায়িত্ব ভার গ্রহণ করেন তিনি।

পরীক্ষিৎবাবু বলেন, তিনি ১৯৯২ সালে রাইপুর ব্লকের একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে দিয়ে শিক্ষকতা শুরু করেন। ১৯৯৯ সালে বর্তমান স্কুলের দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। তার পর থেকেই স্কুলের শিক্ষক-শিক্ষিকাদের নিয়ে নতুন করে স্কুল গড়ে তোলার কাজে হাত লাগান।

বর্তমানে এই স্কুলে চারজন শিক্ষক-শিক্ষিকা রয়েছেন। ছাত্র ছাত্রীদের সংখ্যা ৪৭। আদিবাসী অধ্যুষিত প্রত্যন্ত এই গ্রামের স্কুল যেমন ইতিমধ্যেই নির্মল বিদ্যালয়ের পুরস্কার লাভ করেছে, তেমনই এই স্কলের ছাত্রী অপর্ণা সর্দার পর পর দু’বছর জেলা ক্রীড়ায় জিমন্যাস্টিকে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করেছে। আর এ বছরও স্কুলের প্রধান শিক্ষক শিক্ষারত্ন পাচ্ছেম শুনেই খুশি ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক, অভিভাবক থেকে এলাকার সকলেই।

শিক্ষকতার পাশাপাশি অন্য পছন্দের বিষয় কী, এই শিক্ষকের কাছে জানতে চাওয়া হলে তিনি বলেন, “গণিত আমার অন্যতম পছন্দের বিষয়। গণিত নিয়ে যেমন নানান পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে ভালোবাসি, তেমনই গণিত নিয়েই বিভিন্ন ধরনের কবিতা ও মজার ছড়া লিখি”। এ ছাড়াও জেলা এবং জেলার বাইরের বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় নানান বিষয়ে লেখালেখি করেন বলে তিনি জানান।

1 মন্তব্য

  1. Being a Teacher offering private tuition for last 38 years without any remuneration in-spite-of suffering from Cancer for last 15 years, assisted almost 200 students to be established never being recognised by any organisation or media. This is the true story of my life and this is the true picture of the society.

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন