Bharati Ghosh
প্রতিনিধিত্বমূলক ছবি

ওয়েবডেস্ক: সারদা আর্থিক কেলেঙ্কারি তদন্তকে কেন্দ্র করে কলকাতার প্রাক্তন নগরপাল রাজীব কুমার বনাম সিবিআই মামলায় তাৎপর্যপূর্ণ মন্তব্য করলেন প্রাক্তন আইপিএস তথা রাজ্য বিজেপির সহ-সভানেত্রী ভারতী ঘোষ।

হাইকোর্টের রায়ে রাজীবকে জেরার জন্যে ডাকার পরেও সিবিআই দফতরে যাননি তিনি। রীতিমতো আত্মগোপন করতে হয় তাঁকে। তার পরই আদালতে গিয়ে আগাম জামিনের আবেদন করতে দেখা যায় এ দিন। কিন্তু বারাসত আদালত রাজীবের সেই আবেদনের শুনানিতে নারাজ। এমন পরিস্থিতিতে সিবিআই আরও বেশি সক্রিয় রাজীবের নাগাল পেতে।

একটি সংবাদ মাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে রাজীবের বর্তমান অবস্থার জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেই দায়ী করেন ভারতী। তাঁর প্রশ্ন, “কেন একজন আইপিএস অফিসারকে পালিয়ে বেড়াতে হবে”? তাঁর ধারণা, “এই সরকারের বিভিন্ন কাজের জন্যই যে কোনো অফিসার যে কোনো সময় বিপদে পড়তে পারেন”।

একই সঙ্গে ভারতী অভিযোগ করে বলেন, “শুধু এই আইপিএস কেন, সব আইএএস, আইপিএসদের নিয়ে ভাবতে হবে, তাঁরা কী ভাবে কাজ করছেন। চাপ দিয়ে এইসব আধিকারিকদের অনৈতিক কাজে বাধ্য করানো হচ্ছে”।

ভারতী জানান, “মমতা তাঁদের (আধিকারিকদের) কাছের লোক বলে পরিচয় করিয়ে দেন। তার পর তাঁদের অপব্যবহার করে পরবর্তীতে বিপদের মুখে ফেলে দেন”।

উল্লেখ্য, এক সময়ে মমতার ঘনিষ্ঠ হিসাবে পরিচিত ভারতীর বিরুদ্ধেও দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। ২০১৭ সালের ডিসেম্বর মাসে কর্মক্ষেত্র থেকে ইস্তফা দেওয়ার পর থেকেই মমতার বিরুদ্ধে বিষোদ্গার শুরু করেন প্রকাশ্য সভামঞ্চে মমতাকে ‘জঙ্গলমহলের মা’ হিসাবে সম্বোধন করা ভারতী। তাঁর বিরুদ্ধে সিআইডি তদন্ত শুরু করে রাজ্য। গত লোকসভা ভোটের আগে বিজেপিতে যোগ দিয়ে তিনি ঘাটাল কেন্দ্র থেকে পদ্মপ্রতীকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে তৃণমূল প্রার্থী দেবের কাছে পরাজিত হন। কয়েক সপ্তাহ আগেই রাজ্য বিজেপির গুরুত্বপূর্ণ পদে তাঁর অভিষেক ঘটে।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন