BCKV
ধরনার ফাইলচিত্র

ওয়েবডেস্ক:  লাগাতার ছাত্র আন্দোলনের জেরে অনির্দিষ্টকালের জন্য পঠনপাঠন এবং হস্টেল বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত ঘোষণা করলেন নদিয়ার বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। নির্দেশিকা জারির পরই একাংশের ছাত্রৃছাত্রী শনিবারই হস্টেল ছেড়ে বাড়ি ফিরতে শুরু করলেন।

গত সপ্তাহখানেক সময় ধরেই ছাত্র আন্দোলনে জেরবার বিশ্ববিদ্যালয়। একাংশের পড়ুয়ারা কৃষি বিভাগের এবং ছাত্র কল্যাণ বিভাগের ডিনের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ তুলে তাঁদের অপসারণের দাবিতে সরব হন। দীর্ঘদিন ধরে চলা কিছু অনিয়মে মদত দেওয়া এবং গত শনিবার বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থানরত পড়ুয়াদের তুলতে পুলিশ ডাকার বিরুদ্ধে ছাত্র আন্দোলন এমন পর্যায়ে পৌঁছায় যে, ছাত্র কল্যাণ বিভাগের ডিনকে অপসারণ করেন উপাচার্য। এরই মাঝে ঘটে গিয়েছে অবস্থানরত পড়ুয়াদের উপর বহিরাগতদের হামলার ঘটনা। সেই ঘটনার তদন্তেরও আশ্বাস দেন উপাচার্য ধরণীধর পাত্র।

কিন্তু পড়ুয়াদের দাবি, সামান্যতম আশ্বাস দিয়েই উপাচার্য আন্দোলন গুটিয়ে ফেলার চেষ্টা করেছেন। তিনি অনির্দিষ্টকালীন পঠনপাঠন বন্ধের সিদ্ধান্ত নিয়ে ফের শুরু হয় সংঘাত। এ বার পড়ুয়াদে পাশে এসে দাঁড়ান শিক্ষকরাও। শিক্ষকদের একাধিক সংগঠনের তরফে পড়ুয়াদের উপর ক্যাম্পাসে ঢুকে বহিরাগতদের হামলা ও উপাচার্যের পঠনপাঠন বন্ধের সিদ্ধান্তের তীব্র বিরোধিতা শুরু হয়।

গত শুক্রবার শারীরিক ভাবে অসুস্থ হয়ে পড়লে উপাচার্যকে কলকাতার একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বলে তাঁর পরিবার সূত্রে খবর। ধরণীধরবাবুর পরিবারের অভিযোগ, ছাত্র আন্দোলন এবং ধাক্কাধাক্কির জেরে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েছেন। তাঁকে আইসিইউতে রাখা হয়েছে।

আরও পড়ুন: সরলেন ডিন, ঘুরলেন উপাচার্য! বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ুয়াদের পাশে শিক্ষকরা

শনিবার বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-পড়ুয়া, জেলা প্রশাসনের আধিকারিক এবং শাসক দলের নেতৃত্বের সঙ্গে বৈঠকে করেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তবে তার আগে থেকে ক্যাম্পাস ছাড়তে শুরু করে দিয়েছেন আবাসিকরা।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন