BCKV

ওয়েবডেস্ক: ছাত্র আন্দোলনে উত্তপ্ত বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের অবস্থানরত পড়ুয়ারা বৃহস্পতিবার উপাচার্য-সহ দুই ডিনের কুশপুতুল দাহ করলেন।

ইতিমধ্যেই ছাত্রদের উপর বহিরাগতদের হামলার ঘটনায় বড়োসড়ো প্রমাণ উঠে এসেছে। জানা গিয়েছে, গত বুধবার রাতে ক্যাম্পাসে অনশনের সিদ্ধান্ত নেওয়া একাংশের পড়ুয়াদের উপর হামলা চালানোর সময় হস্টেল লক্ষ্য করে ইট-পাথর ছোড়ার পাশাপাশি গুলিও চালানো হয়। বিশ্ববিদ্যালয়ের সামনে থেকে গুলির খোলও উদ্ধার হয়েছে।

অবস্থানরত পড়ুয়াদের অভিযোগ, গত বুধবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটা নাগাদ এক দল বহিরাগত আচমকা ক্যাম্পাসে ঢুকে পড়ে। তাঁরা বেধড়ক মারধর শরু করে অবস্থানকারীদের উপর। এমনকী ছাড় পাননি ছাত্রীরাও। তাঁদের জুতো পেটা করার অভিযোগ উঠেছে। একই ভাবে এক ছাত্রী অভিযোগ করেন, প্রায় ছয় রাউন্ড গুলি চালায় বহিরাগতরা।

যদিও বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ পুরো ঘটনার দায় চাপিয়ে দিয়েছেন অবস্থানরত পড়ুয়াদের উপর। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ধরণীধর পাত্র জানিয়েছেন, অবস্থানকারীরা নিজেদের মধ্যেই মারামারি করেছেন।


আরও পড়ুন: বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থানরত পড়ুয়াদের ওপর বহিরাগতদের হামলা, শ্লীলতাহানি,আহত ২০

উপাচার্যের এমন মন্তব্যের পরই অবস্থানরত পড়ুয়াদের প্রতিবাদ তুঙ্গে ওঠে। তাঁরা উপাচার্যকে এমন মন্তব্যের ব্যাখ্যা চান। কিন্তু তিনি নীরব থাকেন বলে জানিয়েছেন পড়ুয়ারা। এ দিন বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে উপাচার্য-সহ দুই ডিনের কুশপুতুল দাহ করা হয়।


আরও পড়ুন: বিধানচন্দ্র কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যকে ২৪ ঘণ্টার সময়সীমা বেঁধে দিলেন অবস্থানরত পড়ুয়ারা

পড়ুয়াদের দাবি, উপাচার্য চেয়েছিলেন ঘটনা থেকে হাত ধুয়ে ফেলতে আগামী ১৫ দিনের জন্য ক্যাম্পাস খালি করে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেবেন। কিন্তু এ হেন সিদ্ধান্তে প্রতিবাদে সরব হন অধ্যাপকরাও। তাঁরা উপাচার্যের সঙ্গে একমত না হওয়ায় ফের বৈঠকে বসেন তিনি। অধ্যাপকরা আলাদা করে এ দিন পড়ুয়াদের সঙ্গে মিলিত হন। তাঁরা আশ্বাস দেন, যে সব দাবিতে আন্দোলন চলছে, সেগুলির সঙ্গে তাঁরাও এক মত। ফলে তাঁরা পড়ুয়াদের পাশেই থাকবেন।

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য দিন !
আপনার নাম লিখুন