কলকাতা: পাহাড় রাজনীতিতে নয়া মোড়! শুক্রবার তৃণমূলে যোগ দিলেন গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার প্রাক্তন সভাপতি বিনয় তামাং এবং কার্শিয়াংয়ের প্রাক্তন বিধায়ক রোহিত শর্মা। এ দিন ক্যামাক স্ট্রিটে একটি হোটেলে তৃণমূলে যোগ দেন তাঁরা।

এ দিন মলয় ঘটক এবং ব্রাত্য বসুর উপস্থিতিতে তৃণমূলের পতাকা হাতে তুলে নেন বিনয়-রোহিত। সামনে জিটিএ নির্বাচন। তার আগেই জিটিএ-র প্রাক্তন চেয়ারম্যান বিনয়ের তৃণমূলে যোগদান নিঃসন্দেহে তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

তৃণমূলে যোগ দিয়ে বিনয় বলেন, “গত ১৫ জুলাই আমি আমার দল থেকে ইস্তফা দিয়েছিলাম। পদও ছেড়েছিলাম। এরপর আজ ১৬৪ দিন হয়ে গেল। কিন্তু তার পরে অন্য কোনো রাজনৈতিক দলে যুক্ত হইনি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আদর্শে উদ্বুদ্ধ হয়ে আমি তৃণমূলে ফেরার সিদ্ধান্ত নিই। মমতাকে আমি সর্বভারতীয় নেতা হিসেবে দেখতে চাই। মমতাকে আমি প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেখতে চাই। সর্বভারতীয় তৃণমূলে থেকেই আমরা পাহাড়বাসী, গোটা উত্তরবঙ্গের মানুষের সেবা করতে চাই”।

গোর্খাল্যান্ড নিয়ে বিজেপি-র সমালোচনা করে তিনি বলেন, “আমাদের মূল বিরোধী বিজেপি। তারা বার বার আমাদের পৃথক গোর্খাল্যান্ডের ললিপপ দেখিয়েছে। পৃথক গোর্খাল্যান্ডের দরকার নেই আমাদের। চাই পাহাড়ের প্রকৃত উন্নয়ন। সেটা তৃণমূলের সঙ্গে থাকলেই সম্ভব”।

দুই গুরুত্বপূর্ণ নেতাকে দলে পেয়ে ব্রাত্য বসু বলেন, “আমাদের সঙ্গে যাঁরা পাহাড়ের রাজনীতিতে আছেন, বিমল গুরুং, অনীত থাপা, হরকাবাহাদুর ছেত্রী সকলেই তৃণমূলকেই সমর্থন করেছেন। এখন সরাসরি তৃণমূলে এলেন বিনয় তামাং, রোহিত শর্মা। এর ফলে দল হিসাবে তৃণমূল আরও বেশি শক্তিশালী হবে”। সব মিলিয়ে পাহাড়ের রাজনীতিতে নতুন বাঁক এল বলেই অনুমান করা যেতে পারে।

আরও পড়তে পারেন:

কলকাতায় তাপমাত্রা থাকল চোদ্দোর নীচেই, তবে একের পর এক পশ্চিমী ঝঞ্ঝায় বছর শেষে স্তব্ধ হবে শীত

ফের কিছুটা কমল দৈনিক সংক্রমণ, কমল সক্রিয় রোগীর সংখ্যাও

পশ্চিমবঙ্গের কোন পুরসভায় ভোট কবে, এক নজরে দেখে নিন

ওমিক্রন: উত্তরপ্রদেশের নির্বাচন পিছিয়ে দেওয়ার জন্য নির্বাচন কমিশনের কাছে আর্জি জানাল এলাহাবাদ হাইকোর্ট

পশ্চিমবঙ্গের কোভিডগ্রাফ নিম্নমুখীই, কলকাতাতেও সংক্রমণ দুশোর নীচে

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন