Connect with us

বীরভূম

অনুব্রত মণ্ডলের পরিবারে শোকের ছায়া

Anubrata Mondal

বোলপুর: মারা গেলেন বীরভূমের দাপুটে তৃণমূল নেতা অনুব্রত মণ্ডলের স্ত্রী ছবি মণ্ডল। শুক্রবার সকালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। তাঁর মৃত্যুতে শোকস্তব্ধ অনুব্রত মণ্ডল।

দীর্ঘ দিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন ছবিদেবী। ক্যানসারে আক্রান্ত ছিলেন তিনি। চিকিৎসা চলছিল কলকাতার টাটা ক্যানসার হাসপাতালে। চিকিৎসার নানা প্রচেষ্টা ব্যর্থ করে এ দিন সকালে মারা যান ছবিদেবী।

অনুব্রত মণ্ডলের এলাকাতেও শোকের ছায়া নেমে এসেছে। দলীয় নেতার স্ত্রীর মৃত্যুর খবর পেয়েই কলকাতার উদ্দেশে রওনা দেন বীরভূম জেলা তৃণমূলের সহ-সভাপতি অভিজিত সিংহ, বোলপুরের বিধায়ক তথা রাজ্যের মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিংহ-সহ জেলা তৃণমূলের নেতৃত্ব।

রাজনীতির পাশাপাশি স্ত্রীর চিকিৎসার জন্যও ছুটে বেড়াতেন অনুব্রত। এর আগে বিভিন্ন জনসভাতে স্ত্রীর অসুস্থতার কথা বলতে শোনা গিয়েছে অনুব্রতকে। স্ত্রীর দ্রুত আরোগ্য কামনার জন্য দলীয় সমর্থক-কর্মীদের উদ্দেশে বলতেন।

আরও পড়ুন সরস্বতী পুজোয় বৃষ্টির সম্ভাবনা রাজ্য জুড়ে

রাজনৈতিক ময়দানে মুখে হুমকির কথা শোনা গেলেও স্ত্রীর অসুস্থতা নিয়ে যথেষ্ট মানসিক চাপে ছিলেন অনুব্রতবাবু। গত বছরের এপ্রিলে অনুব্রতর মা পুষ্পরানি মণ্ডলের মৃত্যু হয়। তিনিও দীর্ঘ দিন ধরে অসুস্থ ছিলেন।

অনুব্রতবাবু ছাড়া, মেয়ে সুকন্যাকে রেখে গেলেন ছবিদেবী।

কলকাতা

কলকাতায় চিকিৎসা করাতে এসে ৩০ বছর বয়সি মহিলা জানতে পারলেন তিনি ‘পুরুষ’

খবরঅনলাইন ডেস্ক: তিরিশ বছর ধরে স্বাভাবিক জীবন যাপন করে গেছেন। কোনো জটিলতা নেই। হঠাৎ শুরু হল তলপেটে ব্যথা। ছুটে এলেন ডাক্তারদের কাছে। ডাক্তাররা আবিষ্কার করলেন, রোগিণী হিসাবে যাঁর চিকিৎসা করছেন তাঁরা, তিনি আসলে রোগিণী নন, রোগী এবং তিনি অণ্ডকোষের ক্যানসারে (testicular cancer) ভুগছেন।

বিস্ময়ের ব্যাপার, এই ঘটনা প্রকাশ্যেই আসতেই সেই ‘রোগিণী’র ২৮ বছরের বোন প্রয়োজনীয় পরীক্ষানিরীক্ষা করান এবং জানা যায়, তাঁরও ‘অ্যান্ড্রোজেন ইনসেনসিটিভিটি সিন্ড্রোম’ (Androgen Insensitivity Syndrome) রয়েছে। এটা শরীরের এমন একটা অবস্থা যাতে একজন মানুষ জিন-ঘটিত দিক থেকে ‘পুরুষ’ হয়ে জন্মায়, কিন্তু তাঁর সব শারীরিক বৈশিষ্ট্য ‘মহিলা’র মতো হয়।

প্রায় এক দশক আগে বিবাহিত, বীরভুমের ৩০ বছর বয়সি সেই ‘মহিলা’ তলপেটের নীচের দিকে প্রচণ্ড ব্যথা নিয়ে মাস দুয়েক আগে কলকাতার নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বোস ক্যানসার হাসপাতালে (Netaji Subhas Chandra Bose Cancer Hospital) আসেন। তখন ক্লিনিক্যাল ক্যানসার বিশেষজ্ঞ ডা. অনুপম দত্ত এবং সার্জিক্যাল ক্যানসার বিশেষজ্ঞ ডা. সৌমেন দাস তাঁকে পরীক্ষা করেন এবং তাতেই তাঁর ‘প্রকৃত পরিচয়’ জানা যায়।

ডা. অনুপম দত্ত সংবাদসংস্থা পিটিআইকে বলেন, “তাঁকে দেখে মনে হয় তিনি মহিলাই। তাঁর কণ্ঠস্বর, তাঁর উন্নত স্তন, স্বাভাবিক বহিঃস্থ জননেন্দ্রিয় – সব কিছুই মহিলাদের মতো। তবে জন্ম থেকেই জরায়ু আর ডিম্বাশয় নেই। কখনও তাঁর ঋতুস্রাব হয়নি।”

এটা একটা বিরল ঘটনা। প্রতি ২২ হাজার মানুষের মধ্যে এক জনের হতে পারে বলে ডা. দত্ত জানান।

মহিলার শারীরিক পরীক্ষার রিপোর্টে বলা হয়েছে, তাঁর যোনিপথ গুপ্ত (ব্লাইন্ড ভ্যাজিনা, Blind vagina)। তখন ডাক্তাররা কারইয়োটাইপিং টেস্ট (Karyotyping test) করানোর সিদ্ধান্ত করেন। তখন দেখা যায় তাঁর ক্রমোসোম জোড়া হল ‘এক্সএক্স’ (এক্সএক্স), ‘এক্সওয়াই’ (XY) নয়, যা একজন মহিলার থাকে।

ডা. অনুপম দত্ত আরও বুঝিয়ে বলেন – ‘তলপেটে প্রচণ্ড ব্যথার দরুন আমরা ওঁর ক্লিনিক্যাল পরীক্ষা করাই। তাতে দেখা যায় তাঁর অণ্ডকোষ দু’টো শরীরের ভেতরে। বায়োপসি করা হয়। তারই পরই জানা যায় তিনি অণ্ডকোষের ক্যানসারে ভুগছেন, যাকে বলা হয় সেমিনোমা (seminoma)।”

এখন তাঁর কেমোথেরাপি চলছে এবং তাঁর শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল আছে।

ডা. দত্ত জানান, তাঁর অণ্ডকোষ শরীরের মধ্যে থাকায় সেগুলো পরিণত হয়নি। ফলে টেস্টোস্টেরন নিঃসরণ হত না। অন্য দিকে তাঁর নারী হরমোনগুলো তাঁকে মহিলার চেহারা দিয়েছিল।

এটা জানার পর সেই ‘মহিলা’র প্রতিক্রিয়া কী, জানতে চাওয়া হলে ডা. দত্ত বলেন, “এক জন মহিলা হিসাবে তিনি বড়ো হয়ে উঠেছেন। প্রায় এক দশক হল এক জন পুরুষকে বিয়ে করেছেন। এখন আমরা সেই রোগিণী এবং তাঁর স্বামীর সঙ্গে কথা বলছি। তাঁদের বোঝাচ্ছি, জীবন যে ভাবে চলে এসেছে, সে ভাবেই চলুক।”

জানা গিয়েছে, ওই দম্পতি বার কয়েক সন্তানলাভের চেষ্টা করেছেন কিন্তু স্বাভাবিক ভাবেই ব্যর্থ হয়েছেন।

অতীতে ওই মহিলার দুই মাসিরও ‘অ্যান্ড্রোজেন ইনসেনসিটিভিটি সিন্ড্রোম’ ধরা পড়েছিল। “এটা সম্ভবত ওঁদের জিনেই রয়েছে”, জানালেন ওই ক্যানসার বিশেষজ্ঞ।

Continue Reading

বীরভূম

স্বাস্থ্যবিধি মেনে রথের সকালে খুলে গেল তারাপীঠ মন্দির

তারাপীঠ: দক্ষিণেশ্বর মন্দির, বেলুড় মঠ আগেই খুলেছে। এ বার খুলে গেল তারাপীঠ (Tarapith) মন্দিরও। তিন মাস বন্ধ থাকার পর রথের দিন সকালে ভক্তদের জন্য খুলে দেওয়া হল এই মন্দির।

মঙ্গলবার ভোর পাঁচটায় মন্দির খোলে। মঙ্গলারতি দিয়ে শুরু হয় পুজো। শারীরিক দূরত্ববিধি মেনে সকাল থেকে মন্দিরে আসতে শুরু করে আশেপাশের বাসিন্দারা। তবে করোনাভাইরাসের (Coronavirus) প্রকোপের কারণে ভক্তদের গর্ভগৃহে প্রবেশ করতে দেওয়া হয়নি।

করোনা সংক্রমণ রুখতে কয়েক মাস ধরেই বন্ধ রাজ্যের প্রায় সমস্ত মন্দির। কিন্তু ১ জুন থেকে আনলক পর্ব শুরু হওয়ায় ধীরে ধীরে রাজ্যের বিভিন্ন ধর্মীয় স্থান খোলার অনুমতি দেওয়া হয়।

তবে তারাপীঠের মন্দির বন্ধই রাখা হয়েছিল। এই পরিস্থিতিতে চলতি মাসের ১৪ তারিখ বৈঠকে বসেন মন্দির কমিটির সদস্যরা। সেখানে কেউ দাবি করেন, খুলে দেওয়া হোক তারাপীঠ মন্দির।

১৪ তারিখের পর আরও কয়েকটি বৈঠক হয় মন্দির কমিটির সদস্যদের মধ্যে। এর পরেই সিদ্ধান্ত হয় মঙ্গলবার খোলা হবে মন্দিরের দরজা। স্বাস্থ্যবিধি নিয়ে অনেক কড়াকড়ি করা হয়েছে মন্দিরে।

ভক্তদের স্যানিটাইজেশন মেশিনের মধ্যে দিয়ে মন্দির চত্বরে ঢুকতে হচ্ছে। শারীরিক দূরত্ব যাতে মেনে চলা হয় তার জন্য মন্দির প্রাঙ্গণেই লাল দাগ কেটে দেওয়া হয়েছে। তার মধ্যেই দাঁড়াতে হচ্ছে ভক্তদের। রথযাত্রার দিন তারাপীঠেও রথ বেরোয়। তবে এ বার সেটা বন্ধ রাখা হয়েছে।

Continue Reading

বীরভূম

আনলক ১ পর্বে এ বার খুলছে তারাপীঠ মন্দিরও

তারাপীঠ (বীরভূম): আনলক ১ (Unlock 1)-এর মধ্যেই খুলেছে দক্ষিণেশ্বর মন্দির আর বেলুড় মঠ (Belur Math)। এ বার খুলতে চলেছে তারাপীঠ মন্দিরও।

রথের দিন, অর্থাৎ ২৩ জুন ভক্তদের জন্য খুলে দেওয়া হচ্ছে তারাপীঠ মন্দির (Tarapith Temple)। এমনই জানানো হয়েছে মন্দির কমিটির তরফে।

করোনা (Coronavirus) সংক্রমণ রুখতে কয়েক মাস ধরেই রাজ্যের সব ধর্মীয় স্থান বন্ধ ছিল। তবে আনলক-১ পর্বে একে একে খুলে দেওয়া হয়েছে বেশ কিছু মন্দির। কিন্তু তারাপীঠ মন্দির খোলা নিয়ে কিছুতেই সিদ্ধান্তে আসতে পারছিল না মন্দির কমিটি।

এই পরিস্থিতিতে চলতি মাসের ১৪ তারিখ বৈঠকে বসেন মন্দির কমিটির সদস্যরা। সেখানে কেউ দাবি করেন, খুলে দেওয়া হোক তারাপীঠ মন্দির। কেউ আশঙ্কা প্রকাশ করে বলেন, বেশির ভাগ ভক্ত তথা পর্যটকরা হাওড়া-কলকাতার হওয়ায় মন্দির খুললে সংক্রমণ বাড়বে।

নানা টানাপোড়েনের মধ্যেই শনিবার ফের বৈঠকে বসে মন্দির কমিটি। সেখানেই মন্দির খোলার ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তবে প্রচুর নিয়মকানুন মানতে হবে।

শারীরিক দূরত্ববিধি কঠোর ভাবে পালন করতে হবে ভক্তদের। পাশাপাশি গর্ভগৃহে প্রবেশ করতে দেওয়া হবে না কাউকে। দর্শনার্থীদের হয়ে পুজো দিয়ে আসবেন সেবায়েতরাই। ভোগের ক্ষেত্রেও বেশ কিছু কড়াকড়ি চালু করা হচ্ছে।

তবে মন্দির কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি কিছুটা থিতু হয়ে এলেই ফের গর্ভগৃহে প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হবে ভক্তদের।

Continue Reading
Advertisement

কেনাকাটা

কেনাকাটা2 days ago

হ্যান্ডওয়াশ কিনবেন? নামী ব্র্যান্ডগুলিতে ৩৮% ছাড় দিচ্ছে অ্যামাজন

খবরঅনলাইন ডেস্ক : করোনাভাইরাস বা কোভিড ১৯ এর সঙ্গে লড়াই এখনও জারি আছে। তাই অবশ্যই চাই মাস্ক, স্যানিটাইজার ও হ্যান্ডওয়াশ।...

কেনাকাটা5 days ago

ঘরের একঘেয়েমি আর ভালো লাগছে না? ঘরে বসেই ঘরের দেওয়ালকে বানান অন্য রকম

খবরঅনলাইন ডেস্ক : একে লকডাউন তার ওপর ঘরে থাকার একঘেয়েমি। মনটাকে বিষাদে ভরিয়ে দিচ্ছে। ঘরের রদবদল করুন। জিনিসপত্র এ-দিক থেকে...

কেনাকাটা7 days ago

বাচ্চার জন্য মাস্ক খুঁজছেন? এগুলোর মধ্যে একটা আপনার পছন্দ হবেই

খবরঅনলাইন ডেস্ক : নিউ নর্মালে মাস্ক পরাটাই দস্তুর। তা সে ছোটো হোক বা বড়ো। বিরক্ত লাগলেও বড়োরা নিজেরাই নিজেদেরকে বোঝায়।...

কেনাকাটা1 week ago

রান্নাঘরের টুকিটাকি প্রয়োজনে এই ১০টি সামগ্রী খুবই কাজের

খবরঅনলাইন ডেস্ক : লকডাউনের মধ্যে আনলক হলেও খুব দরকার ছাড়া বাইরে না বেরোনোই ভালো। আর বাইরে বেরোলেও নিউ নর্মালের সব...

নজরে