Ram Temple
প্রতীকী ছবি

কলকাতা: অযোধ্যা মামলার শুনানিতে সুপ্রিম কোর্ট সাফ জানিয়ে দিয়েছে, আগামী বছরের জানুয়ারির আগে এই মামলার শুনানি সম্ভব নয়। ও দিকে বিজেপির কাছে এখন নাভিশ্বাস তোলার উপক্রম হয়েছে অযোধ্যায় রামমন্দির নির্মাণ নিয়ে সহযোগী সংগঠন এবং দলীয় কর্মী-সমর্থকদের উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাওয়া চাপ। এমন অবস্থায় বিশ্ব হিন্দু পরিষদের তরফে দাবি করা হয়েছে, কেন্দ্রীয় সরকার অর্ডিন্যান্স নিয়ে এসে রাম মন্দিরের নির্মাণ কাজ শুরু করুক। একই ভাবে প্রদেশ কংগ্রেসের প্রাক্তন সভাপতি তথা কংগ্রেস সাংসদ অধীর চৌধুরীও ‘বক্রবাণে’ বিদ্ধ করলেন বিজেপিকে।

বিজেপি সভাপতি স্বয়ং কেরলে গিয়ে অযোধ্যা মামলার শুনানির বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের উপর আস্থা রাখার কথা জানিয়েছিলেন। একই ভাবে উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথও সুপ্রিম কোর্টের উপর ভরসা রাখার কথা প্রকাশ করেছিলেন। কিন্তু এক দিকে বিশ্বহিন্দু পরিষদের চাপ অন্য দিকে আগামী ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের বোঝা। ফলে সুপ্রিম কোর্টের শুনানির জন্য অপেক্ষা না কি বিশ্বহিন্দু পরিষদের দাবি মেনে অর্ডিন্যান্স জারি করবে, দ্বিমুখী প্রশ্নে শাঁখের করাতে পড়েছে কেন্দ্রের শাসক দল বিজেপি।

সোমবার অযোধ্যা মামলার শুনানির দিন পিছানোর পর বাড়া ভাতে ছাই পড়া বিজেপির মুশকিল আসান হয়ে অধীরবাবু বলেন, সংসদে বিজেপির সংখ্যাগরিষ্ঠতা রয়েছে। তা সত্ত্বেও কেন কেন্দ্রীয় সরকার রাম মন্দির প্রতিষ্ঠায় বিল নিয়ে আসছে না?

রাম মন্দির নির্মাণে এ বার তৃণমূলের দ্বারস্থ গেরুয়া শিবির!

কেন্দ্রীয় ভাবে কংগ্রেসের তরফে প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী পি চিদম্বরম টুইটারে লিখেছেন, ভোট এলেই রামমন্দির নিয়ে হাওয়া গরম করে বিজেপি। অধীরবাবুও কতকটা একই ঢঙে বলেন, গেরুয়া শিবির ইচ্ছাকৃত ভাবে ভোটের আগে রাম নাম যপ করে। তিনি দাবি করেন, জিএসটি বা তালাকের মতো বিষয়গুলি নিয়ে যখন বিজেপি বিল নিয়ে আসতে পারে, তা হলে রামমন্দির নিয়েও তারা তা করে দেখাতে পারে। আসলে বিজেপি ছলনার রাজনীতি করছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here