Mukul Roy and Sabyasachi Dutta
সব্যসাচী দত্ত এবং মুকুল রায়। ফাইল ছবি

ওয়েবডেস্ক: ফের বিধাননগরের মেয়র সব্যসাচী দত্তের বাড়িতে গিয়ে সাক্ষাৎ করলেন বিজেপি নেতা মুকুল রায়। গত মঙ্গলবারই সব্যসাচীর বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব জমা পড়েছে। আগামী ১৮ জুলাই ভোটাভুটি হতে পারে বিধাননগর পুরসভায়। এ দিন মেয়রের বাড়িতে মুকুলের আগমনে নতুন জল্পনা ছড়াল।

গত রবিবার রাতেও সব্যসাচীর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন মুকুল। সল্টলেকের বিএফ ব্লকের বিধাননগর সুইমিং অ্যাসোসিয়েশনের পুলে সাক্ষাৎ হয় তাঁদের। সেখানেই তাঁদের বৈঠক হয়। বৈঠক শেষে সাংবাদিক বৈঠক করেন তাঁরা।

মুকুল বলেন, ‘‘সব্যসাচীর বিজেপিতে যোগদান নিয়ে কোনো কথা হয়নি’’। একই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘‘ওকে উপদেশ দেওয়া দাদা হিসেবে আমার কর্তব্য। একটা তো রাজনৈতিক সংকট তৈরি হয়েছে। ওর কী করণীয়, কী কাজ করা উচিত, সে ব্যাপারে বিজেপি নেতা হিসেবে নয়, সব্যসাচীর দাদা হিসেবে ওকে উপদেশ দিলাম’’।

একই কথার অনুরণন শোনা যায় সব্যসাচীর বক্তব্যেও। তিনি জানান, “দাদা হিসাবেই তাঁর কাছ থেকে পরামর্শ নিতে এসেছিলাম”।

গত রবিবারের নৈশভোজ

এর পর ফের বাড়িতে গিয়ে সাক্ষাৎ করলেন মুকুলবাবু। এ দিন তাঁদের মধ্যে কী কথা হয়েছে, তা এখনও বিশদে জানা যায়নি। কিন্তু আগামী ১৮ জুলাইয়ের ভোটাভুটি নিয়ে যে আলোচনা হতে পারে, তেমনটাই ধারণা ওয়াকিবহাল মহলের।

সব্যসাচী আগেই চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়ে বলেছেন, ভোটাভুটি হলেই সব স্পষ্ট হয়ে যাবে। কিন্তু তাঁর বিরুদ্ধে জমা পড়া অনাস্থা প্রস্তাবে বিধাননগরের ৪১ জন কাউন্সিলারের মধ্যে ৩৫ জনের স্বাক্ষর থাকায় ফের মেয়র পদে ফিরে আসার আশা তিনিও সম্ভবত করছেন না। যে কারণে তিনি মন্তব্য করেন, আমি না-হয় বিরোধী প্রতিনিধি হিসাবেই থাকব।

এমন পরিস্থিতি থেকে মুকুল যে ম্যাচ বের করতে চাইবেন, সেটাও অমূলক নয়। যতই হোক ‘ভাই’-এর জন্য এটুকু তো ‘দাদা’-কে করতেই হয়! কিন্তু হালিশহর, কাঁচরাপাড়া অথবা হরিণঘাটা নিয়ে যা কাণ্ড ঘটে চলেছে, তাতে মুকুলের পরিকল্পনায় বিজেপি কতটা সায় দেবে, সেটাও দেখার

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here