BJP Symble
প্রতিনিধিত্বমূলক ছবি

কলকাতা: আগামী লোকসভা ভোটকে পাখির চোখ বঙ্গ-ব্রিগেডে ব্যাপক রদবদল এনেছে বিজেপি। এ বার রাজ্যের সংখ্যালঘু ভোটকে নিজেদের দিকে টানতে একাধিক কর্মসূচি নিতে চলেছে গেরুয়া শিবির।

গত ২০১৪ সালে বাংলার ৪২টি আসনের মধ্যে মাত্র ২টি আসনেই মুসলমান প্রার্থী দিয়েছিল বিজেপি। তমলুকে বাদশা আলম এবং ঘাটালে মহম্মদ আলমই প্রার্থী হয়েছিলেন সংখ্যালঘু প্রতিনিধি হিসাবে। টাকায়। সে বার ভোটে ওই দুই আসনে বিজেপির ভোট এক লক্ষ ছাড়াতে না পারলেও রাজ্যের অন্যান্য আসনের নিরিখে মোটের উপর ভালোই ভোট টেনেছিলেন এই দুই প্রার্থী। বাদশা পেয়েছিলেন ৮৬ হাজার এবং মহম্মদ পেয়েছিলেন ৯৫ হাজার ভোট।

একই ভাবে চলতি বছরে অনুষ্ঠিত হওয়া রাজ্যের ত্রিস্তরীয় পঞ্চায়েত ভোটে ৮০০-র উপর সংখ্যালঘু প্রতিনিধিকে টিকিট দিয়েছিল বিজেপি। যদিও তার আগেরবারের পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিজেপির সংখ্যালঘু প্রার্থীর সংখ্যা ১০০ ছাড়াতে পারেনি।

একই ভাবে আগামী ২০১৯ সালের লোকসভা ভোটেও বিজেপির সংখ্যালঘু প্রার্থীর সংখ্যা দুই অঙ্কে পৌঁছালেও অবাক হওয়ার কিছু থাকবে না। দলের রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, রাজ্যের বেশ কয়েকটি সংখ্যালঘু অধ্যুষিত জেলায় আমাদের সংগঠন বেশ ভালো অবস্থানেই রয়েছে। আসলে রাজ্যের মানুষ তৃণমূল কংগ্রেসের বিকল্প হিসাবে বিজেপিকেই বেছে নিচ্ছেন।

তাঁর মতে, রাজ্যের মুসলমান সম্প্রদায়ের মানুষ বুঝতে পারছেন কেন্দ্রের বিজেপি সরকার তাঁদের জন্য যে কাজ করছে, তা আগের সরকার করেনি। এমনকী কেন্দ্রের তিন তালাক প্রথা নিয়ে যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত নিয়ে মুসলমান মহিলাদের কাছে গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠেছে বিজেপি।

অন্য দিকে বিজেপির সংখ্যালঘু মোর্চার সভাপতি আলি হোসেন জানিয়েছেন, রাজ্যে বিজেপির সংখ্যালঘু সদস্যের সংখ্যা ক্রমশ বেড়েই চলেছে। ২০১৪ সালে যেখানে ওই সংখ্যা ছিল মাত্র ৫০ হাজার, সেখানে বর্তমানে তা ছুঁয়ে ফেলেছে ২ লক্ষ।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here