আসানসোল: বুথ কমিটির বৈঠক সেরে ফেরার পথে খুন হয়ে গেলেন বিজেপির এক বুথ সভাপতি। এর প্রতিবাদে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। বিজেপির অভিযোগ, সন্দীপ ঘোষ নামক ওই কর্মীকে খুন করেছে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা। তবে তৃণমূলের দাবি, বিজেপির গোষ্ঠীদ্বন্দের জেরেই খুন হয়েছেন ওই কর্মী।

উল্লেখ্য, রবিবার রাতে দুর্গাপুরের কাঁকসায় বিজেপির বুথ স্তরের বৈঠক ছিল। বিজেপি কর্মীদের অভিযোগ, বৈঠক শেষে ফেরার পথে সরস্বতীগঞ্জে লাঠি ও আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ে তাঁদের উপর হামলা চালায় শাসকদলের আশ্রিত দুষ্কৃতীরা। বাইক থেকে নামিয়ে সন্দীপবাবুকে লক্ষ করে গুলি  চালানো হয়। বেধড়ক মারধর করা হয় তাঁর সঙ্গী জয়দীপ বন্দ্যোপাধ্যায়কে। দু’জনকেই নিয়ে যাওয়া হয় দুর্গাপুরে একটি বেসরকারি হাসপাতালে। সন্দীপকে মৃত বলে ঘোষণা করেন চিকিৎসকরা। হাসপাতালে চিকিৎসা চলছে জয়দীপের।

ঘটনার খবর পেয়ে হাসপাতালে যান বিজেপির পশ্চিম বর্ধমানের কার্যকরী সভাপতি লক্ষ্মণ ঘড়ুই। তাঁর অভিযোগ, পরিকল্পনামাফিক দলের কর্মীদের উপর হামলা চালিয়েছে শাসকদলের দুষ্কৃতীরা।ঘটনার সিবিআই তদন্তের দাবি তুলেছেন তিনি। এই অভিযোগ অস্বীকার করে পশ্চিম বর্ধমানের কার্যকরী সভাপতি উত্তম মুখোপাধ্যায়র পালটা দাবি, দুর্গাপুরে বিজেপি অন্দরে গোষ্ঠীকোন্দল চরমে পৌঁছেছে। তারই ফলশ্রুতিতে খুন হতে হয়েছে ওই বিজেপি কর্মীকে। এই ঘটনার সঙ্গে শাসকদলের কোনো সম্পর্ক নেই।

তবে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। দুর্গাপুর, আসানসোলের বিভিন্ন জায়গায় বিজেপি কর্মীরা অবরোধ করছেন বলে খবর। বুধবার পশ্চিম বর্ধমান জেলায় বন্‌ধের ডাক দেওয়া হবে কি না সেই নিয়েও চিন্তাভাবনা চলছে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here