ঝাড়গ্রামে বিপদসীমার উপর দিয়ে বইছে নদী

0
জলের তলায় সেতু

ওয়েবডেস্ক: টানা কয়েক দিনের ভারী বৃষ্টিতে ঝাড়গ্রামে বিপদসীমার উপর দিয়ে বইছে নদীর জল। ডুলুং নদীর জল বাড়ায় আতঙ্কে ভুগছেন স্থানীয় বাসিন্দারা।

গত কয়েক দিন ধরেই প্রবল বৃষ্টির সম্মুখীন হয়েছে বাংলার বেশ কয়েকটি জেলা। আগামী ২৪ ঘণ্টায় ভারী বর্ষণের আশঙ্কা করছে আবহাওয়া দফতর। হাওয়া-অফিসের অনুমান, কলকাতা, হাওড়া, হুগলি, উত্তর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা ও পূর্ব মেদিনীপুরে এর প্রভাব পড়েছে। একই সঙ্গে এর প্রভাবে কলকাতা-সহ এই পাঁচটি জেলায় আগামী সোমবার থেকে ২০০ মিলিমিটার পর্যন্ত বৃষ্টি হতে পারে। একই ভাবে এর প্রভাব পড়ছে ঝাড়গ্রামেও।

আশঙ্কা করা হচ্ছে, এ ভাবে চলতে থাকলে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হতে পারে ঝাড়গ্রামের। নদী পেরিয়ে ব্লক সদর গিধনিতে যেতে হল এই সেতুই ভরসা। কিন্তু সেই সেতুর অবস্থা বিপজ্জনক আকার ধারণ করেছে। সেখানে ডুলুং নদীর উপর সেতু জলের নীচে চলে গিয়েছে। এর জেরে ঝাড়গ্রাম থেকে জামবনির যোগাযোগ প্রায় বিচ্ছিন্ন। বহু বছরের পুরনো এই সেতুর অবস্থা মোটেই ভালো নয়। স্থানীয় বাসিন্দারা ক্ষোভ উগরে দিচ্ছেন প্রশাসনের উপর।

স্থানীয় বাসিন্দাদের অভিযোগ, তাঁরা দীর্ঘদিন ধরেই প্রশাসনের দ্বারস্থ হয়েছেন। কিন্তু বিষয়টি নিয়ে প্রশাসনের উদাসীনতায় তাঁরা ফি বছর বর্ষায় আতঙ্কের মধ্যে দিন কাটান।

উল্লেখ্য, ঝাড়খণ্ড সীমানাবর্তী বেলপাহাড়ি ব্লকের ডুলুংডিহা পাহাড় থেকে উৎপত্তি হয়েছে ডুলুং নদীর। সেখান থেকেই একেবেঁকে ডুলুং জামবনি, ঝাড়গ্রাম, বেলিয়াবেড়া ও সাঁকরাইল ব্লক এলাকা হয়ে সুবর্ণরেখায় গিয়ে মিশেছে। বছরের অন্যান্য সময় ডুলুংয়ে হাঁটুজল, কিংবা কোমর পর্যন্ত জল থাকলেও প্রতিবছর বর্ষাকালে জলে টইটম্বুর হয়ে দু’কুল ছাপিয়ে যায়। গত কয়েক দিনের এক নাগাড়ে ভারী বৃষ্টিতে যেন ফুঁসছে ছোট্ট ডুলুং।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন