কলকাতা হাইকোর্ট
কলকাতা হাইকোর্ট। প্রতীকী ছবি: ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস থেকে

কলকাতা: সাময়িক ভাবে পিছিয়ে গেল কর্মশিক্ষায় শিক্ষক নিয়োগ। দু’দিনের জন্য নিয়োগ প্রক্রিয়া অন্তর্বর্তী স্থগিতাদেশ দিয়েছেন হাইকোর্টের বিচারপতি বিশ্বজিৎ বসু। মামলার আগামী শুনানি বৃহস্পতিবার।

মোট ৭৫০ শূন্যপদে নিয়োগ

২০১৬ সালের নিয়োগে কর্মশিক্ষা বিভাগে সুপার নিউমেরারি পদ তৈরি করে নিয়োগ করছে এসএসসি। ২০১৮ সালের মার্চে ইন্টারভিউ হয়। এ বছর অক্টোবরে শারীরিক শিক্ষা এবং কর্মশিক্ষা বিষয়ে অতিরিক্ত পদে শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি দেয় এসএসসি। ৩ নভেম্বর কর্মশিক্ষা বিষয়ে যে অপেক্ষারত পরীক্ষার্থীদের তালিকা প্রকাশ করে এসএসসি। যার ভিত্তিতে ইতিমধ্যেই কাউন্সেলিং সম্পন্ন হয়েছে। মোট ৭৫০ শূন্যপদে নিয়োগ হওয়ার কথা।

কেন মামলা গড়িয়েছে হাইকোর্টে

এই নিয়োগ ঘিরে মামলা গড়িয়েছে হাইকোর্টে। মামলাকারীর অভিযোগ, তার চেয়ে কম নম্বর পেয়েও অনেকে নিয়োগ প্রক্রিয়ায় ডাক পেয়েছেন। ওয়েটিং লিস্টে থাকা প্রার্থীদের থেকে কম নম্বর পাওয়া অনেকেই নিয়োগে ডাক পেয়েছেন এই অভিযোগের প্রেক্ষিতে হওয়া মামলার শুনানিতে বিচারপতি জানিয়েছেন বিষয়টি খতিয়ে দেখা প্রয়োজন। তাই মামলার পরবর্তী শুনানি না হওয়া পর্যন্ত ওই ৭৫০টি পদে আপাতত নিয়োগে কোনো রকম পদক্ষেপ করা যাবে না বলে নির্দেশে জানিয়েছেন বিচারপতি।

নম্বর নিয়ে মামলাকারীর অভিযোগ

আদালতে মামলা করেন সোমা রায় নামে এক চাকরিপ্রার্থী। তাঁর দাবি, কম নম্বর পেয়েও অনেকে চাকরি করছেন। অন্তত ৬০ জন কম নম্বর পেয়েও চাকরি করছেন। বিষয়টি নিয়ে আদালতের দ্বারস্থ হয়েছেন তিনি। আদালতে সোমা রায়ের অভিযোগ, ৩ নভেম্বর কর্মশিক্ষা বিষয়ে যে অপেক্ষারতদের তালিকা প্রকাশ করেছে এসএসসি, তাতে তাঁর নাম নেই। তাঁর দাবি, তিনি পরীক্ষা এবং পার্সোনালিটি টেস্ট মিলিয়ে ৭২ নম্বর পেয়েছেন। কিন্তু অ্যাকাডেমিক স্কোরে ২২-এর পরিবর্তে তাঁকে ১৮ নম্বর দেওয়া হয়েছে। পুরো নম্বর যোগ করা হয়নি। অর্থাৎ নম্বরে গরমিল রয়েছে।

কমিশনের যুক্তি সন্তুষ্ট নয় আদালত

অন্য দিকে, কমিশনের আইনজীবী যুক্তি দেন, যে নামগুলো সামনে আনা হয়েছে, তাঁদের ‘বিশেষ যোগ্যতা’ রয়েছে। ওই তালিকায় অনেক ‘প্যারা টিচার’ (পার্শ্বশিক্ষক) রয়েছেন। তাঁদের একটা সংরক্ষণ দেওয়া হয়েছে। যদিও এই যুক্তি মানতে চাননি বিচারপতি। কী ভাবে অপেক্ষারতদের নিয়োগ তালিকা তৈরি করেছে এসএসসি, নাম ধরে ধরে দেখতে চেয়েছে আদালত। হাইকোর্টের নির্দেশ, দু’দিনের জন্য কোনো চাকরিপ্রার্থীকে সুপারিশপত্র দিতে পারবে না এসএসসি।

আরও পড়ুন: বেড়েই চলেছে ডেঙ্গি, নবান্নে জরুরি বৈঠকে বসছেন মুখ্যমন্ত্রী

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন