কলকাতা: পরিবেশ আদালতের নিষেধাজ্ঞাকে বুড়ো আঙুল দেখিয়েই রবীন্দ্র সরবোরে জোর কদমে চলছে ছটপুজো। এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ পরিবেশবিদ সুভাষ দত্ত লেক থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন তিনি।

গত বছরই রবীন্দ্র সরবোরে ছটপুজোর উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিল জাতীয় পরিবেশ আদালত অর্থাৎ ন্যাশনাল গ্রিন ট্রাইব্যুনাল। সেই নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে এ বছরও সরোবরে দিব্যি চলছে ছটপুজোর আয়োজন। ইতিমধ্যেই সেজে উঠেছে লেক চত্বর। লাগানো হয়েছে আলো। বাঁধা হয়েছে। এমনকি পুজোর জন্য জলে নামতে যাতে অসুবিধা না হয়, সেজন্য জলের মধ্যে বাঁধা হয়েছে মই।

chhat pujo at rabindra sarovor
রবীন্দ্র সরবোরে ছটপুজো। ছবি রাজীব বসু।

পরিবেশবিদ সুভাষ দত্ত বলছেন, “এটা শুধু আদালতের অবমাননা নয়, শাস্তিযোগ্য অপরাধ।” শুধু জরিমানাই নয়, এই অপরাধে অভিযুক্তদের জেল হতে পারে বলেও জানিয়েছেন সুভাষবাবু। প্রশাসনের একটা অংশের মদতে এই ঘটনা ঘটছে বলে অভিযোগ করেছেন তিনি।

এক সময় রবীন্দ্র সরোবর লেকে নিয়মিত চলত ধর্মীয় আচার আচরণ। কিন্তু শহরের অন্যতম বড়ো জলাশয়ে ধর্মীয় রীতিনীতি পালনের ফলে ক্ষতি হচ্ছিল পরিবেশের। সমস্যায় পড়ছিল জলাশয়কেন্দ্রিক বাস্তুতন্ত্র। জলের প্রাণীরা তো ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছিলই সেই সঙ্গে বন্ধ হচ্ছিল পরিযায়ী পাখির আনাগোনা। তাই গত বছর রবীন্দ্র সরোবরে ছটপুজো-সহ অন্য সামাজিক অনুষ্ঠান বন্ধের আবেদন করে জাতীয় পরিবেশ আদালতের দ্বারস্থ হন সুভাষ দত্ত। তাঁর করা মামলার ভিত্তিতে আদালত সাফ জানিয়ে দিয়েছিল রবীন্দ্র সরোবর লেকে আর কোনো সামাজিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা যাবে না।

তবে গত বছর কোনোরকম বাজি না পুড়িয়ে, ডিজে না চালিয়ে শুধুমাত্র ছটপুজোর অনুমতি দিয়েছিল আদালত। সেই সঙ্গে বলে দিয়েছিল, এ বছর থেকে আর ছটপুজো করা যাবে না। আদালতের সেই নির্দেশ অবজ্ঞা করে ফের ছট পুজোর আয়োজনে নতুন করে শুরু হয়েছে বিতর্ক।

dailyhunt

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন