Mamata Banerjee
ছবি প্রতীকী, তৃণমূল কংগ্রেসের ওয়েবসাইট থেকে

ওয়েবডেস্ক: ছিটমহল নিয়ে উচ্চপদস্থ কর্তাদের একহাত নিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবার কোচবিহার শহরের ‘উৎসব’ অডিটোরিয়ামের প্রশাসনিক বৈঠকে তিনি সাবেক ছিটমহলবাসীর হাতে জমি তুলে দেওয়ার বিষয়ে প্রশাসনিক ঢিলেমি নিয়ে চরম অসন্তোষ প্রকাশ করেন। পাশাপাশি সংশ্লিষ্ট আধিকারিকদের নির্দেশ দেন, তিন দিনের মধ্যে অর্ডিন্যান্স জারি করে  দ্রুত মালিকানা সংক্রান্ত সমস্যা মিটিয়ে নিয়ে যোগ্য ব্যক্তিদের হাতে জমির অধিকার তুলে দিতে হবে।

উল্লেখ্য, প্রায় ৬৮ বছর পর ২০১৫ সালে মমতার উদ্যোগেই দীর্ঘ জটিলতা কাটিয়ে ছিটমহল বিনিময় হয়। এ দিন মমতা প্রশাসনিক কর্তাদের কাছে ছিটমহলবাসীর উন্নয়ন সংক্রান্ত একাধিক প্রশ্নের উত্তর চান। যা শুনে তিনি অসন্তুষ্ট হয়েছেন বলেই জানা যায়। তিনি জানতে চান, তিন বছর আগে ছিটমহল বিনিময়ের সময় চুক্তির পর থেকে ছিটমহলবাসীরা কী কী সুযোগ-সুবিধা পেয়েছেন? একই সঙ্গে তিনি প্রশাসনিক কর্তাদের উদ্দেশে প্রশ্ন ছুড়ে দেন, কেন তাঁদের এখনও পর্যন্ত জমির মালিকানা দেওয়া হয়নি?

মুখ্যমন্ত্রীর কাছ থেকে এমন প্রশ্নবাণ উড়ে আসার পরই ভূমি সংস্কার দফতরের সচিব জানান, ইতিমধ্যে ছিটমহলের জমির সার্ভের কাজ সম্পূর্ণ হয়ে গিয়েছে। দফতর প্রায় ৬ হাজার ৯০০ একর জমির খসড়া সার্ভে করে চূড়ান্ত করেছে। এমনকী, কার দখলে কত পরিমাণ জমি রয়েছে সেটাও চিহ্নিত করতে সক্ষম হয়েছে দফতর। কিন্তু সেই চিহ্নিত জমি সাবেক ছিটমহলবাসীদের হাতে তুলে দিতে হলে বিধানসভায় সংশ্লিষ্ট আইনের সংশোধনীর প্রয়োজন রয়েছে।

সচিবের মুখে এহেন যুক্তি শুনে ক্ষুব্ধ মমতা বলেন, মানুষের উন্নয়নের কাজ কোনো সংশোধনীর জন্য আটকে থাকবে, তা হতে পারে না। আগামী তিন দিনের মধ্যে অর্ডিন্যান্স নিয়ে এসে জমির অধিকার তুলে সাবেক ছিটমহলবাসীর হাতে তুলে দিতে হবে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here