“সব টাকা নিয়ে চলে গেছে গদ্দার”, গয়েশপুরের সভায় মমতার নিশানায় এ বার কি শুভ্রাংশু?

0
Mamata-Banerjee gayeshpur

ওয়েবডেস্ক: এর আগেও একাধিক বার তৃণমূল-ত্যাগী বিজেপি নেতা মুকুল রায়কে নাম না-করে বিঁধেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে রবিবার নদিয়ার গয়েশপুরের সভায় তাঁর মন্তব্য জুড়ে থাকা “গদ্দার”-তত্ত্ব যেন অন্য কোনো ইঙ্গিত দিল বলেই ধারণা করছে রাজনৈতিক মহল।

এ বারের লোকসভা ভোটের প্রচারে মমতা প্রথম থেকেই দাবি করে আসছেন, কেন্দ্রে বিজেপির আর ফেরার কোনো সম্ভাবনা নেই। তবে এ দিনের সভায় তিনি বিস্তারিত ভাবে তৃণমূল-ত্যাগীদের প্রসঙ্গ টেনে নিয়ে আসায় একাধিক প্রশ্ন উঠে এসেছে।

মমতা বলেন, “বই লিখে উপার্জন করি, চুরি করি না”। পাশাপাশি তিনি তৃণমূল থেকে চলে যাওয়া গদ্দার-এর উদ্দেশে কটাক্ষ করতে বেশ কিছুটা সময় ব্যয় করেন। ভাটপাড়ার প্রাক্তন বিধায়ক অর্জুন সিং বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর থেকেই মুকুল রায়ের বিধায়ক পুত্র শুভ্রাংশুকে নিয়ে জল্পনা ছড়িয়ে চলেছে সমান ভাবেই। শুভ্রাংশু নিজে মুখে তৃণমূলের সঙ্গে থাকার দাবি করলেও বেশ কয়েকটি ঘটনা পরম্পরা তাঁকে বিতর্কের বাইরে থাকতে দিচ্ছে না। গত শনিবারও তাঁর বিজেপিতে যোগ দেওয়া নিয়ে জল্পনা জাঁকিয়ে বসে। নেপথ্যে একটি ফেসবুক পোস্ট

এ দিন গয়েশপুরের সভায় মমতা বলেন, “তৃণমূলের এক গদ্দার সব টাকা নিয়ে চলে গেছে, সে বলছে এখানে ভোটে জিতবে। ক্ষমতা থাকলে একটা আসন জিতে দেখান বাংলা থেকে”।

একই সঙ্গে তিনি কড়া হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, “সব গদ্দাররা চলে যাও। দরজা খোলা আছে। আমার কিচ্ছু যায়-আসে না”।

বিজেপিতে যাওয়ার পর থেকেই মুকুলবাবু দাবি করে থাকেন, অসংখ্য হেভিওয়েট তৃণমূল নেতা বিজেপিতে যোগ দেওয়ার জন্য তৈরি আছেন। বেশ কয়েকজনকে তিনি গেরুয়া শিবিরে টানতে সক্ষমও হয়েছেন। সেই প্রসঙ্গেই নিজের ছেলেকে নিয়ে প্রশ্নের মুখে পড়তে হয় তাঁকে। কয়েক দিন আগেই শুভ্রাংশুর দলবদলের প্রশ্নে তিনি বলেছিলেন, “একটু অপেক্ষা করুন”। স্বাভাবিক ভাবেই এ দিন মমতার মুখে দরজা খোলা থাকার বক্তব্যেই হয়তো তিনি শুভ্রাংশুকে নিশানা করতে পারেন বলে ধারণা রাজনীতির কারবারিদের।

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন