CBI

কলকাতা: ইসিএলের আরও একজন প্রাক্তন জেনারেল ম্যানেজারকে গ্রেফতার করল সিবিআই। কয়লা পাচারকাণ্ডে এই নিয়ে এখনও পর্যন্ত সংস্থার বর্তমান এবং প্রাক্তন মিলিয়ে মোট আট জন আধিকারিক ও কর্মচারীকে গ্রেফতার করল কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা।

এ দিন ধৃতের নাম সুভাষ মুখোপাধ্যায়। সকাল ১১টায় তাঁকে নিজাম প্যালেসে তলব করা হয়েছিল। হাজিরে দিলে তাঁকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন গোয়েন্দারা। সিবিআই সূত্রে খবর, তাঁর বয়ানে একাধিক অসঙ্গতি মেলায় তাঁকে গ্রেফতার করা হয়।

ধৃত কয়লা মাফিয়াদের দীর্ঘ জেরার পর, তাঁদের মুখেই ইসিএল-এর উচ্চপদস্থ আধিকারিক ও কর্মীদের নাম উঠে এসেছিল বলে সূত্রের খবর। গত বুধবার সকালে নিজাম প্যালেসে তলব করা হয় ওই সাত আধিকারিককে। এর আগে তাঁদের বাড়িতেও তল্লাশি চালান তদন্তকারীরা। ম্যারাথন জিজ্ঞাসাবাদের পর তাঁদের গ্রেফতার করা হয়।

ওই দিন যাঁদের গ্রেফতার করা হয়েছে, তাঁদের মধ্যে রয়েছেন ইসিএলের বর্তমান জিএম এসসি মৈত্র, তিন প্রাক্তন জিএম অভিজিৎ মল্লিক, সুশান্ত বন্দ্যোপাধ্যায় ও তন্ময় দাস, ম্যানেজার পদমর্যাদার মুকেশ কুমার এবং দুই নিরাপত্তারক্ষী দেবাশিস মুখোপাধ্যায় ও রিঙ্কু বেহেরা।

বৃহস্পতিবার আসানসোলের বিশেষ সিবিআই আদালতের বিচারক রাজেশ চক্রবর্তী তাঁদের পাঁচ দিনের সিবিআই হেফাজতের নির্দেশ দিয়েছেন।

সিবিআইয়ের দাবি, ধৃতদের সঙ্গে কয়লা মাফিয়াদের দীর্ঘদিনের আঁতাঁত ছিল। কয়লা-কাণ্ডের মূল অভিযুক্ত অনুপ মাজি ওরফে লালার সঙ্গে সরাসরি সম্পর্ক রয়েছে এই অভিযুক্তদের। ইসিএল-এর এই আধিকারিক ও কর্মীরা মোটা টাকার বিনিময়ে কয়লা মাফিয়াদের হাতে কয়লা পাচার করে দিতেন বলে অভিযোগ।

তবে অভিযুক্তদের আইনজীবীরা আদালতে দাবি করেন, তাঁদের মক্কেলদের হিসাব বহির্ভূত কোনো সম্পত্তি বা অর্থের হদিস সিবিআই পায়নি।

আরও পড়তে পারেন:

গরমে নাজেহাল উত্তরবঙ্গের জন্য স্বস্তির খবর, শনিবার থেকে সক্রিয় হতে পারে বর্ষা

দিল্লিতে নির্মীয়মাণ গোডাউনের পাঁচিল ভেঙে মৃত ৫, আহত আরও ন’জন

কোটালের জেরে তীব্র জলোচ্ছ্বাস, বানভাসি পূর্ব মেদিনীপুরের উপকূল

রাশিয়ার থেকে সামরিক অস্ত্র কিনলেও ভারতের বিরুদ্ধে কোনো নিষেধাজ্ঞা নয়, সিদ্ধান্ত মার্কিন কংগ্রেসের

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন