সর্বোচ্চ তাপমাত্রায় ব্যাপক পতন, মেঘবৃষ্টির খেলায় দক্ষিণবঙ্গে এখন ‘শীতল দিন’

0

কলকাতা: এখন সাধারণভাবে মেঘমুক্ত আকাশে রোদের হালকা তেজ উপভোগ করার সময়। দিনের তাপমাত্রা থাকবে কিছুটা বেশি তিরিশ ডিগ্রির ঘরে, আর ভোর বেলায় তা নেমে যাবে ১৭-১৮ ডিগ্রিতে, বা তার আরও নীচে। ফলে দিনের বেলায় গরম লাগলেও ভোরের দিকে শীত শীত ভাব অনুভূত হবে, এটাই স্বাভাবিক।

কিন্তু গত কয়েকদিন ধরে যে আবহাওয়া দক্ষিণবঙ্গে চলছে, তাতে পুরো ব্যবস্থাটাই বদলে গিয়েছে। মেঘবৃষ্টির খেলার ফলে সর্বোচ্চ তাপমাত্রায় ব্যাপক পতন এসেছে। রোদের দেখা না মেলায়, সারাদিনই শীতের অনুভূতি হচ্ছে। আবার সেই মেঘের কারণেই সর্বনিম্ন তাপমাত্রা খুব একটা নামতে পারছে না। সে কারণে ভোরের দিকে অতটা শীত লাগছে না।

এই পরিস্থিতিকেই আবহাওয়ার পরিভাষায় বলে ‘শীতল দিন।’ প্রকৃত শীতের সঙ্গে এই পরিস্থিতির যথেষ্ট তফাৎ রয়েছে।

প্রকৃত শীত হল মেঘমুক্ত আকাশে কড়া রোদের আগমন এবং সারাদিন উত্তর দিক থেকে বয়ে আসা শীতল শুষ্ক বাতাস। আর রাত বাড়তেই বাড়বে ঠান্ডার প্রকোপ। ভোর হলে ব্যাপক ভাবে কমে যাবে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। আর এখন যেটা হচ্ছে, সেটা হল ঠিক উলটো। সারাদিন ভেজা ঠান্ডা। জলীয় বাষ্পে ভরা বাতাস ঢুকছে দক্ষিণবঙ্গে। রোদ নেই বলে সারাদিন ধরে হালকা কাঁপুনি ভাবও থাকছে। অথচ সর্বনিম্ন তাপমাত্রা কমছে না।

এই পরিস্থিতির কারণেই দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন জায়গায় সর্বোচ্চ আর সর্বনিম্ন তাপমাত্রার মধ্যে তফাৎটা অনেকটাই কম। কলকাতার রবিবার সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ২৫.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে ৪ ডিগ্রি কম। আর সোমবার সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ২০.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস, যা স্বাভাবিকের থেকে দু’ডিগ্রি বেশি।

রবিবার বৃষ্টিবাদলার ফলে অনেক কম সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে বাঁকুড়া (২২ ডিগ্রি), পুরুলিয়া (২১.৯ ডিগ্রি), শান্তিনিকেতন (২১.৬ ডিগ্রি), আসানসোল (২১.৫ ডিগ্রি) এবং পানাগড়ে (২১.২ ডিগ্রি)। অন্যদিকে, সোমবার সব থেকে কম সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছে কৃষ্ণনগরে (১৫.৬ ডিগ্রি)। বর্ধমানে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ছিল ১৬.৬ ডিগ্রি। দক্ষিণবঙ্গের বাকি অঞ্চলে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১৮-১৯ ডিগ্রির আশেপাশে ঘোরাফেরা করেছে।

এর পাশাপাশি বৃষ্টিও হচ্ছে দক্ষিণবঙ্গে মোটামুটি ভালোই। কলকাতা ও তার পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে হালকা বৃষ্টি হলেও বৃষ্টির দাপট অনেকটাই বেশি পুরুলিয়া, দুই বর্ধমান, নদিয়া, মুর্শিদাবাদে। পুরুলিয়াতে গত ২৪ ঘণ্টায় ২৪ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে। কৃষ্ণনগরে ১৪ মিলিমিটার বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে। বর্ধমানে বৃষ্টি হয়েছে ১১ মিলিমিটার। কলকাতায় ২ মিলিমিটার বৃষ্টি হয়েছে।

সোমবারও এই রকম আবহাওয়াই থাকবে দক্ষিণবঙ্গে। দফায় দফায় বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরের পর থেকে আবহাওয়া পরিষ্কার হতে পারে। যদিও তা সাময়িক ভাবেই পরিষ্কার হবে। কারণ বঙ্গোপসাগরে তৈরি হওয়া আরও একটি নিম্নচাপের কারণে বৃহস্পতিবার থেকে মেঘ ফের ঢুকতে পারে দক্ষিণবঙ্গের আকাশে।

আরও পরতে পারেন

আটটি দলে কাজ করবেন ৭৭ জন মন্ত্রী, সরকারি কাজে দক্ষতা ও স্বচ্ছতা আনতে বড়ো পরিকল্পনা নরেন্দ্র মোদীর

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন