Anupam Ghosh 2

ওয়েবডেস্ক: কংগ্রেস ছাড়লেন অনুপম ঘোষ। তিনি পশ্চিমবঙ্গ প্রদেশ কংগ্রেসের মিডিয়া সেলের দায়িত্বে ছিলেন। রবিবার কলকাতায় বিজেপির একটি অনুষ্ঠানে দিলীপ ঘোষের উপস্থিতিতেই তিনি দলবদল করলেন।

নিজের দলবদল প্রসঙ্গে অনুপমবাবু বলেন, “বর্তমানে বাংলায় যদি তৃণমূলের বিরোধিতা করতে হয়, তা হলে বিজেপি ছাড়া আর কোনো বিকল্প নেই। এক দিন পরিবর্তনের ডাক দিয়ে বামফ্রন্ট সরকারকে অপসারণ করেছিল বাংলার মানুষ, কিন্তু এখন মানুষ সেই পরিবর্তনের পরিবর্তন চাইছে। মানুষের চাহিদা পূরণ করতে পারে এক মাত্র বিজেপিই”।

প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরীর ঘনিষ্ট হিসাবে পরিচিত অনুপমবাবু দীর্ঘদিন ধরেই দলের মিডিয়া সেলের কাজ সামলাতেন। তবে ইদানীং তিনি নিজের দায়িত্বপালনে পূর্ণ স্বাধীনতা পাচ্ছিলেন না বলে জানা গিয়েছে। প্রদেশ কংগ্রেসের সভাপতিপদ থেকে অধীরবাবুকে সরিয়ে দিয়ে সোমনে মিত্রকে বসানোর পর থেকেই তিনি এবং তাঁর টিম বিধানভবনে কার্যত কোণঠাসা হয়ে গিয়েছিল বলেও অভিযোগ।

আরও গুরুতর অভিযোগ করে অনুপমবাবু বলেন, “বিধানভবনে মিডিয়া সেলের ঘরটাই দখল হয়ে গিয়েছিল নতুন সভাপতি আসার পর। এ ব্যাপারে তাঁর সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেও সুযোগ পাওয়া যায়নি। এমনকী তাঁকে একাধিক মেল করার পরও তিনি কোনো রকমের প্রত্যুত্তর দেননি”।

Anupam-Ghosh

যদিও এ কথা মানতে নারাজ সোমেন-ঘনিষ্ঠ নেতৃত্ব। তাঁদের দাবি, প্রদেশ সভাপতি পরিবর্তনের সঙ্গে অনুপমবাবুর দায়িত্বের কোনো সম্পর্ক ছিল না। ফলে সে সব ব্যাপারে নতুন সভাপতি বা তাঁর অনুগামীরাও কোনো রকমের অসহযোগিতা করেননি। তাঁরাও অনুপমবাবুকে তাঁর প্রাপ্য সম্মান দিয়েছেন। এর পরেও যদি তিনি দল ছেড়ে চলে যান, তা হলে কিছুই বলার নেই।

আরও পড়ুন: মহারাষ্ট্র সরকারকে ৫০০ কোটি টাকা ঋণ দিচ্ছে শিরডি মন্দির

জানা গিয়েছে, অনুপমবাবু গত শনিবারই দলের সর্বভারতীয় সভাপতি রাহল গান্ধীর কাছে নিজের প্রাথমিক সদস্যপদ এবং দলের অন্যান্য যাবতীয় পদে ইস্তফাপত্র পাঠিয়ে দেন। তাঁর বক্তব্য, “কংগ্রেসের হাইকম্যান্ড সাংসদ অধীর চৌধুরীর মতো এক জন লড়াকু নেতাকে আগাম না জানিয়েই প্রদেশ সভাপতিপদ থেকে অপসারণ করে। এই দলে থেকে কী হবে”?

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here