সংক্রমণ কমলেও এখনও ঝুঁকি নিতে নারাজ নবান্ন, জেলায় জেলায় কনটেনমেন্ট জোন করার সিদ্ধান্ত

0

খবরঅনলাইন ডেস্ক: কোভিড সংক্রমণে লাগাম টানতে বিধিনিষেধের মেয়াদ আরও দুই সপ্তাহের জন্য বাড়িয়ে দিয়েছে পশ্চিমবঙ্গ সরকার। এ বার ওই একই লক্ষ্যে ফের জেলায়-জেলায় ‘কন্টেনমেন্ট জোন’ ঘোষণার পদ্ধতিতেই ফিরছে নবান্ন। গত বছর জুলাই থেকে কয়েক মাসের জন্য এই জোন তৈরি করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল।

তবে করোনা পরিস্থিতি আগের থেকে অনেকটাই উন্নত হওয়ায় পুরো শহর বা এলাকাকে সম্ভবত কন্টেনমেন্ট জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হবে না। তার বদলে কন্টেনমেন্ট কিংবা মাইক্রো-কন্টেনমেন্ট জোন হিসেবে চিহ্নিত করা হতে পারে একটি পাড়া কিংবা কয়েকটি বাড়ির সমষ্টি।

মঙ্গলবার সমস্ত জেলার জন্য এই কন্টেনমেন্ট-বিধি তৈরি করে দিয়েছে নবান্ন। মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদীর ওই নির্দেশিকা ইতিমধ্যেই পৌঁছে গিয়েছে জেলায়-জেলায়। কলকাতা পুরসভাকেও তা কার্যকর করতে বলা হয়েছে।

জেলা প্রশাসনের ওপরে দায়িত্ব

ওই বিধি অনুযায়ী, প্রতিদিন সংক্রমণের যে জেলাভিত্তিক তথ্য সরকারি পোর্টালে তোলা হয়, তা থেকে বেশি সংক্রমণের এলাকাগুলিকে চিহ্নিত করতে হবে। এই দায়িত্ব জেলা প্রশাসনগুলির। প্রথম দফার কোভিড-যুদ্ধের মতোই সেই এলাকাগুলিকে ‘হট স্পট’ এবং ‘পকেট’ হিসেবে চিহ্নিত করতে হবে।

সংক্রমণে রাশ টানতে সেখানে কড়া নজরদারি ও নিয়ন্ত্রণ-বিধি আরোপ করা হবে। কোভিডের সুরক্ষাবিধি যাতে কঠোর ভাবে কার্যকর করা হয়, তা-ও নিশ্চিত করতে বলা হয়েছে জেলাশাসকদের।

একই সঙ্গে, আগের বারের মতো জোর দেওয়া হচ্ছে ‘টেস্ট, ট্রেস এবং ট্র্যাক’ পদ্ধতি অনুসরণে। অর্থাৎ, যে সমস্ত এলাকায় সংক্রমণের হার বেশি, সেখানে উপসর্গযুক্ত ও উপসর্গহীন ব্যক্তিদের অনেক বেশি করে কোভিড-পরীক্ষার আওতায় আনতে হবে জেলা প্রশাসনগুলিকে। সংক্রমণের গতি-প্রকৃতি বুঝতে নিয়মিত নজরদারি চালাবে তারা। কোভিডের প্রথম ঢেউয়ের সময়ে সর্বত্র যেমন করা হত।

এই কনটেনমেন্ট এলাকায় মানুষের গতিবিধি নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য প্রয়োজনে ব্যারিকেড দেওয়ার কোথাও বলা হয়েছে নবান্নের তরফে।

ওয়াকিবহাল মহলের মতে, গণপরিবহণ বন্ধ রাখার ফলে রাস্তায় প্রচুর সংখ্যক মানুষের বেরিয়ে পড়ার আশঙ্কা আপাতত দু’সপ্তাহের জন্য নেই ঠিকই, কিন্তু গণপরিবহণ বেশি দিনের জন্য বন্ধও রাখা যাবে না। কিছুদিনের মধ্যে তা চালু করতেই হবে। বাস চালু হয়ে যাওয়ার পরেও যাতে বেশি সংক্রামক এলাকা থেকে মানুষ বেরিয়ে আসতে না পারেন, সে কারণেই এমন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

আরও পড়তে পারেন প্রমাণ জোগাড় করতে পারেনি উত্তরপ্রদেশ পুলিশ, কেরলের সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা খারিজ করে দিল আদালত

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন