প্রায় বছর দুয়েকের মাথায় মনুয়াকাণ্ডের রায় ঘোষণা আদালতের

0
Manua murder case

ওয়েবডেস্ক: ২৩ মাস আগে স্ত্রী-র বিবাহ-বর্হিভূত সম্পর্কের কারণে নৃশংসভাবে খুন হতে হয়েছিল ব্যবসায়ী অনুপম সিংকে। বৃহস্পতিবার বারাসত ফাস্ট ট্র্যাক ফোর্থ কোর্ট সেই মামলার রায় ঘোষণা করল। এ দিন আদালত মৃতের স্ত্রী মনুয়া মজুমদার ও তাঁর প্রেমিক অজিত রায়কে দোষী সাব্যস্ত করে। তবে দোষীদের সাজা ঘোষণা হবে আগামী শুক্রবার। স্বভাবতই আদালতের রায়ে খুশি অনুপম সিংয়ের পরিবারের সদস্যরা। তাঁরা মনুয়া ও অজিতের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন। নিহত অনুপমের মায়ের বক্তব্য, ‘সর্বোচ্চ সাজা চাই’।

এ দিন রায় ঘোষণার আগে মনুয়া ও অজিতকে আদালতে তোলা হয়। তবে রায় পড়ে শোনানোর সময় তাঁরা দু’জনেই ভাবলেশহীন মুখে ছিলে বলে প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান।

উল্লেখ্য, গত ২০১৭ সালের ২ মে প্রেমিক অজিতের সঙ্গে পরিকল্পনা করে পেশায় পর্যটন ব্যবসায়ী স্বামী অনুপম সিংহকে খুন করে স্ত্রী মনুয়া। ছক কষে প্রেমিককে দিয়ে স্বামীকে খুন, ফোনের ওপার থেকে স্বামীর আর্ত চিৎকার স্ত্রী মনুয়ার ‘লাইভ’ শোনা, সেই নৃশংস হত্যাকাণ্ড নিয়ে তোলপাড় শুরু হয়।

তবে প্রায় বছর দুয়েক ধরে এই মামলার শুনানি চলাকালীন কোনো সময়ই ভেঙে পড়তে দেখা যায়নি দুই অভিযুক্তকে। নিজেদের নির্দোষ প্রমাণের পাশাপাশি তাঁদের সম্পর্ক নিয়েও বেশ খুশিই থাকতে দেখা গিয়েছে। এমনকী দু’জনকে মুখোমুখি বসিয়ে পুলিশের জেরার সামনেও মনুয়া নিজের অবস্থানেই অনড় থাকে। প্রেমিক অজিত অবশ্য পুলিশের জেরার সামনে অপরাধ কবুল করে নেয় বলে জানা যায়।

প্রসঙ্গত, এর আগে গত ১৫ জুলাই মামলায় রায় ঘোষণার কথা ছিল। তবে পূর্বনির্ধারিত দিন রায়দান স্থগিত করে দেন বারাসত ফাস্ট ট্র্যাক ফোর্থ কোর্টের বিচারক। এ দিন অবশ্য আদালত, দুই অভিযুক্তিকে দোষী সাব্যস্ত করে।

------------------------------------------------
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.