ওয়েবডেস্ক: তুলনামূলক ভাবে কমল কলকাতায় কোভিড-১৯ কনটেনমেন্ট জোনের সংখ্যা। যা করোনাভাইরাস মোকাবিলায় গোটা রাজ্যকেই কিছুটা হলেও আশার আলো দেখাচ্ছে।

গত ১০ জুন কলকাতায় কনটেনমেন্ট জোন ছিল ১,১২৭টি। ২০ জুন সেই সংখ্যা বেড়ে হয়ে যায় ১,৬৬২টি। রাজ্য সরকারের দেওয়া এই পরিসংখ্যান থেকেই স্পষ্ট যে, শহর কলকাতায় কনটেনমেন্ট জোনের সংখ্যা ক্রমশ বেড়ে চলেছে। এ ভাবে বাড়তে থাকলে ২০ জুন থেকে আরও ১০ দিন বাদে এই সংখ্যাটা দু’হাজার পার হয়ে যাওয়াটাই স্বাভাবিক। কিন্তু সেই বৃদ্ধির হার স্থিমিত হয়েছে।

Loading videos...

কোন জেলায় কত কনটেনমেন্ট জোন

কলকাতা-১৭৯৬

হাওড়া-১৪৬

দক্ষিণ ২৪ পরগনা-১২০

উত্তর ২৪ পরগনা-২১৯

পশ্চিম মেদিনীপুর- ২০৯

হুগলি-৭১

পূর্ব বর্ধমান- ১৩০

পূর্ব মেদিনীপুর-৫

মালদহ- ২০

জলপাইগুড়ি- ৫

দার্জিলিং-২

উত্তর দিনাজপুর- ৪৮

মুর্শিদাবাদ- ৪

বাঁকুড়ায- ৩১

বীরভূম- ৯

কোচবিহার- ৩৫

দক্ষিণ দিনাজপুর- ১

এখনকার কনটেনমেন্ট জোন

রাজ্যে এখন মোট কনটেনমেন্ট জোনের সংখ্যা ৩,৫৩২টি। এখন কনটেনমেন্ট জোন বলতে বোঝায়, আক্রান্তের বাড়ি অথবা নির্দিষ্ট একটি চত্বরেই সীমাবদ্ধ। আগে যে ভাবে আক্রান্তের হদিশ মিললে একটি গোটা পাড়াকে কনটেনমেন্ট জোন হিসাবে চিহ্নিত করে ব্যবস্থা নেওয়া হতো, এখন তেমনটা নয়। যে কারণে আনলক পর্যায় শুরু হওয়ার পর কনটেনমেন্ট জোনগুলিতে কড়া নজরদারির নির্দেশ দিয়েছে রাজ্য সরকার।

লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানোর পর রাজ্য সরকার গত সোমবার যে নির্দেশিকা প্রকাশ করে, তাতে বলা হয়েছে যে কনটেনমেন্ট জোনে ৩১ জুলাই পর্যন্ত লকডাউন জারি থাকবে। প্রত্যেক জেলার ডিস্ট্রিক্ট কালেক্টরের ওয়েবসাইটে কনটেনমেন্ট জোনের তালিকা পাওয়া যাবে।

অর্থাৎ, কনটেনমেন্ট জোনগুলিতে আগের মতোই লকডাউনের কড়াকড়ি জারি থাকবে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া কেউ বাড়ি থেকে বেরোতে পারবেন না। ওই অঞ্চলে শুধুমাত্র জরুরি পরিষেবা চালু থাকবে।

রাজ্যে করোনা

শেষ দু’দিন পর রাজ্যে নতুন করোনা-সংক্রমণে কিছুটা পতন দেখা গেলেও কলকাতাকে কেন্দ্র করে যে উদ্বেগজনক পরিস্থিতি রয়েছে, তাতে বিশেষ কোনো পরিবর্তন নেই। বুধবার রাজ্য স্বাস্থ্য দফতর জানায়, কলকাতায় গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ২৩৮ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণের হদিশ মিলেছে। ফলে শহরে এখন বর্তমানে মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৬২২২। যেখানে রাজ্যে এখন মোট আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৯,১৭০।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.