left front
কলকাতা: এ দাবি আজকের নয়। এমন সিদ্ধান্তও নতুন নয়। লোকসভা নির্বাচনে কেন্দ্রে বিজেপি বিরোধিতা তীব্র করতে কংগ্রেসের হাত ধরার প্রসঙ্গ উঠলেও ২০১৬-র বিধানসভা ভোটে রাজ্যে তৃণমূলকে পরাস্ত করতে সিপিএম তাদের সঙ্গে জোট করেছিল ২ বছর আগেই। তখন রাজ্য রাজনীতির কথা বড়ো হয়ে ধরা পড়লেও লোকসভা নির্বাচনের ক্ষেত্রে আর সে পথ মাড়াতে চাইছে না আরএসপি বা ফরওয়ার্ড ব্লকের মতো বামফ্রন্টের শরিক দলগুলি। এমনকী, সিপিএম যদি কংগ্রেসের সঙ্গে যেতে চায়, তা হলে ‘বামফ্রন্টের’ নাম ব্যবহার করার বিরুদ্ধেও সরব শরিক নেতৃত্ব।
ইতিমধ্যেই পশ্চিমবঙ্গ সিপিএমের তরফে রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র কংগ্রেসকে ভোট দেওয়ার আর্জি জানিয়েছেন। তবে সেটা শর্তসাপেক্ষ। ছত্তীসগঢ় বিধানসভা নির্বাচনে যেখানে বামপ্রার্থী নেই, সেখানেই তিনি বামপন্থী ভোটারদের উদ্দেশে ওই আবেদন রেখেছেন। কিন্তু তার আগে থেকেই চাউর হয়ে গিয়েছে আগামী লোকসভা ভোটে কংগ্রেস-সিপিএম নির্বাচনী সমঝোতা হতেই পারে। যে মতের সঙ্গে সম্পূর্ণ বিমত আরএসপি এবং ফরওয়ার্ড ব্লক।
সহযোগী দলের তরফে অভিযোগ করা হচ্ছে, ২০১৬ রাজ্য বিধানসভার নির্বাচনে জোর করে তাদের উপর বামফ্রন্ট-কংগ্রেস জোট চাপিয়ে দেওয়া হয়েছিল। নির্বাচনী সমঝোতার অজুহাতে সেই সিদ্ধান্তের পুনরাবৃত্তি তারা আর চায় না।
আগামী ডিসেম্বরেই বৈঠকে বসছে সিপিএমের কেন্দ্রীয় কমিটি। ওই মাসেই ওই দুই শরিকের পার্টি কংগ্রেস। ফলে এ বছরের মধ্যেই কংগ্রেসের হাত ধরা নিয়ে বামফ্রন্টের মনোভাব স্পষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা প্রকট। একই ভাবে আগামী ফেব্রুয়ারি মাসে সিপিএমের প্রস্তাবিত ব্রিগেড সমাবেশে ক্ষুব্ধ শরিক দলের অংশগ্রহণেও তার প্রভাব পড়তে পারে।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here