purulia

পুরুলিয়া: গত ১৪ মে হয়েছে রাজ্যের পঞ্চায়েত নির্বাচন, ১৬ মে নির্দিষ্ট কয়েকটি বুথে পুনর্নির্বাচনের পর ভোটগণনা হওয়ার পরেও রবিবার ফুলবাড়ির দু’টি বুথে চলছে ভোটগ্রহণ। তা হলে সেই ব্যালট নয়ছয়ের একই অভিযোগে কেন পুনর্নির্বাচন হবে না? এমন দাবিতেই পুরুলিয়ার পুঞ্চা ব্লকের পুনরায় ভোটগ্রহণের দাবি তুলল সিপিএম।

গত শনিবার অভিযোগ ওঠে, স্থানীয় একটি স্কুলের পাশে আবর্জনার স্তূপ থেকে উদ্ধার হয় কয়েক বস্তা ব্যালট। সেগুলি পরীক্ষা করে দেখা যায় জনগণের মত সম্বলিত ওই ব্যালটের অধিকাংশ ভোটই পেয়েছেন সিপিএম প্রার্থী বিপত্তারণ শেখরবাবু। কিন্তু ভোটের ফলাফলে জয়ী হয়েছেন তৃণমূল প্রার্থী সুজয় বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে প্রাপ্ত ওই ব্যালটের মধ্যে বিজেপি এবং নির্দলের সমর্থন জানানো ভোটারের রায়ও ছিল। কিন্তু পুরুলিয়া জেলা নেতৃত্বের ধারণা, এ ভাবেই বিরোধীদের প্রাপ্ত ভোট সম্বলিত এমন কয়েক হাজার ব্যালট নষ্ট করে দেওয়া হয়েছে। এ বিষয়ে ব্লক প্রশাসনের ভূমিকা নিয়েও তাঁরা প্রশ্ন তুলেছেন।

অভিযোগে বলা হয়েছে, প্রশাসনের কর্মীরা এ ভাবেই ব্যালট পুড়িয়ে দিয়েছেন। শাসক দলের সঙ্গে প্রশাসনের এ ধরনের পক্ষপাতিত্ব মূলক আচরণের বিরুদ্ধে আদালতের দ্বারস্থ হওয়ার কথাও ভাবছে সিপিএম। পাশাপাশি রাজ্য নির্বাচন কমিশনের কাছে তথ্য প্রমাণ-সহ অভিযোগ জানিয়ে পুনর্নির্বাচনের দাবি তোলার তোড়জোড়ও চলছে।

আরও পড়ুন: কয়েক বস্তা ব্যালট উদ্ধার হল, দেখে অবাক বিডিও

যদিও জেলা প্রশাসনের তরফে বিষয়টিকে গুরুত্বহীন বলে দাবি করা হয়েছে। প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, এ ধরনের কোনো নিয়ম বহির্ভূত ঘটনার কথা তাদের জানা নেই। এমনকী খোদ জেলা শাসক এ বিষয়ে বলেছেন, উদ্ধার হওয়া ব্যালটে ভোটকর্মীদের ভোট নেওয়া হয়েছিল।

জেলা শাসকের এমন বক্তব্যে অসঙ্গতি স্পষ্ট বলে মনে করছে সিপিএম। ভোট কর্মীদের দেওয়া ভোট হোক বা সাধারণ মানুষের ভোট, তা স্ট্রংরুম থেকে কী ভাবে বাইরে এল অথবা সেগুলিকে তড়িঘড়ি পুড়িয়ে দেওয়ার কারণ কী, সেই প্রশ্নেরই উত্তর চায় সিপিএম।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here