সমীর মাহাত, ঝাড়গ্রাম: ফণীর আঁচ কার্যত ঢুকতে শুরু করল ঝাড়গ্রামে। বৃহস্পতিবার মধ্যরাত থেকে তার আভাস মেলে। ঝাড়গাম জেলার সর্বত্রই বৃষ্টি শুরু হয়েছে, সঙ্গে বইছে ঝোড়ো বাতাসও।

শুক্রবার সকাল থেকে ফণীর জেরে এক নাগাড়ে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। বিশেষত গোপীবল্লভপুর ও নয়াগ্রাম এলাকাতে খানিকটা ঝড়ের খবর মিলেছে। পরে তার প্রভাব বাড়বে বলেই আশঙ্কা।

আবহাওয়া দফতরের খবর অনুযায়ী, শুক্রবার রাতেই ফণী আছড়ে পড়বে দুই মেদিনীপুর সহ ঝাড়গ্রামের বিস্তীর্ণ এলাকায়। তার আগেই প্রশাসন তৎপর রয়েছে। তৈরি রয়েছে ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট।

পাশাপাশি ব্লক প্রশাসন, মহাকুমা প্রশাসন ও জেলা প্রশাসন প্রত্যেকেই ফণীর তাণ্ডবের মোকাবিলা করার জন্য প্রস্তুত রয়েছে ।

স্থানীয় সুত্রে খবর,নয়াগ্রামের সমস্ত দোকানপাট বন্ধ হয়ে গিয়েছে, ঝাড়গ্রাম শহরের কদমকানণে ভেঙে পড়েছে গাছ ।

পাশাপাশি গোপীবল্লভপুরের নড়াগ্রামে রামদাস হেমব্রম নামে এক ব্যক্তির বাড়ি সম্পূর্ণ উড়ে গিয়েছে ঝড়ে।

ইতিমধ্যেই এ রকম বেশ কয়েকটি বাড়ির চালা উড়ে যাওয়ার খবর মিলেছে। বিভিন্ন জায়গায় ভেঙে পড়েছে গাছ।

প্রশাসনের প্রতিনিধিরা ইতিমধ্যেই ক্ষতিগ্রস্ত বাড়িগুলির তথ্য সংগ্রহ শুরু করেছে।

ঝড়ের সময় গোপীবল্লভপুরে একজন আহত ও এই এলাকায় খড়ের ২৪টি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে বলে এখনো পর্যন্ত খবর।

[ আরও পড়ুন: ফণীর প্রভাবে মেদিনীপুরে টর্নাডো, ক্ষতিগ্রস্ত শহরের একাংশ ]

একটি উত্তর ত্যাগ

Please enter your comment!
Please enter your name here