Calcutta High Court

কলকাতা: বকেয়া মহার্ঘ ভাতা (DA) নিয়ে আবারও হাইকোর্টের ডিভিশন বেঞ্চে আবেদন জানিয়েছে রাজ্য। আগের রায় পুনর্বিবেচনার আর্জি জানানো হয়েছে শুক্রবার।

গত ২০ মে মহার্ঘ ভাতা সংক্রান্ত মামলায় রায় ঘোষণা করেছিল বিচারপতি হরিশ ট্যান্ডন ও বিচারপতি রবীন্দ্রনাথ সামন্তের ডিভিশন বেঞ্চ। বেঞ্চের নির্দেশে সরকারকে বলা হয়, সরকারি কর্মচারীদের বকেয়া মহার্ঘ ভাতা তিন মাসের মধ্যে মিটিয়ে দিতে হবে। সেই নির্দেশ অনুযায়ী, তিন মাসের মেয়াদ প্রায় শেষ হওয়ার পথে। এ দিন রাজ্য আবারও মামলা পুনর্বিবেচনার জন্য হলফনামা (রিভিউ পিটিশন) দাখিল করেছে।

উল্লেখ্য, পঞ্চম বেতন কমিশনের সুপারিশ অনুযায়ী, বকেয়া ডিএ-র দাবিতে স্টেট অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ ট্রাইব্যুনাল (SAT)-এ ২০১৬ সালে মামলা করে কনফেডারেশন অব স্টেট গভর্মেন্ট এমপ্লয়িজ। কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীরা ৩৪ শতাংশ হারে ডিএ পান। পশ্চিমবঙ্গ সরকার মাঝে ডিএ বাড়ালেও এখনও কেন্দ্রের তুলনায় রাজ্যের কর্মীরা ৩১ শতাংশ কম পান।

ওই মামলায় রাজ্য সরকারি কর্মীদেরও কেন্দ্রীয় হারে ডিএ দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল স্যাট। এমনকী, তিন মাসের মধ্যে যাবতীয় প্রক্রিয়া শেষ করে ফেলারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল মুখ্যসচিবকে। সেই নির্দেশ কার্যকর না হওয়ায় হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয় রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের সংগঠনগুলি। স্যাটের নির্দেশই বহাল থাকে হাইকোর্টে।

ওই নির্দেশ মানতে হলে সরকারি কর্মীদের ৩১ শতাংশ হারে ডিএ দিতে হতো রাজ্যকে। কিন্তু সেই রায়ের পর আড়াই মাসের বেশি সময় পেরিয়ে গেলেও কোনো পদক্ষেপ করেনি রাজ্য সরকার। আদালতের বেঁধে দেওয়া তিন মাসের সময়সীমাও শেষ হচ্ছে আগামী ১৯ আগস্ট। এ দিকে সূত্রের খবর, বকেয়া ডিএ যদি মেটাতে হয়, তা হলে খরচ হবে ২৩ হাজার কোটি টাকা। এই বিপুল অর্থের জোগান এই মুহূর্তে নেই রাজ্যের ভাঁড়ারে।

আরও পড়তে পারেন: 

ট্যালকম পাউডার বিক্রি বন্ধ করছে জনসন অ্যান্ড জনসন, কারণ কী

বড়ো ধাক্কা তৃণমূলে! মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছে ইস্তফা দিলেন পবন বর্মা

আরও জটিল ঝাড়খণ্ডের তিন বিধায়ক সংক্রান্ত মামলা, জামিনের আবেদন শুনল না সিঙ্গল বেঞ্চ

‘আন্তর্জাতিক জঙ্গি’ ঘোষণায় বাধা চিনের, কে এই আব্দুল রউফ আজহার

ইডি-র আতসকাচে আরেকটি ক্রিপ্টো এক্সচেঞ্জ, ‘ফ্রিজ’ করা হল ৩৭০ কোটি টাকা

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন