নাগরিকপঞ্জীর প্রতিবাদে দলবদল দুই নেতার, চাপে পড়ল বিজেপি

BJP

বালুরঘাট ও দার্জিলিং: নাগরিকপঞ্জী আর নাগরিকত্ব আইন নিয়ে চাপে পড়ল বিজেপি। এই ইস্যুকে কেন্দ্র করেই বিজেপি থেকে তৃণমূলে যোগ দিলেন রাজ্যের দুই জেলার শীর্ষস্থানীয় দুই নেতা।

রবিবার বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেন দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদের সভাধিপতি লিপিকা রায়। বালুরঘাটে তৃণমূল জেলা কাযার্লয়ে তাঁর হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেন জেলা তৃণমূল সভানেত্রী তথা জেলার প্রাক্তন সাংসদ অর্পিতা ঘোষ।

এই দলবদলের ফলে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদটি পুরোপুরি ভাবে তৃণমূলের ক্ষমতায় চলে এল বলে মনে করা হচ্ছে।

একই সঙ্গে এ দিন দার্জিলিংয়ে বিজেপির হিল জেলা কমিটির নেতা সন্তবাহাদুর গুরুংও দল ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। তবে সন্তবাহাদুরের দলত্যাগকে গুরুত্ব দিতে নারাজ জেলার বিজেপি নেতারা। তবে লিপিকা রায়ের দলত্যাগে তাঁরা যে বেশ বেকায়দায় পড়েছেন সেটা অবশ্য দলের উত্তরবঙ্গের নেতাদের আচরণেই স্পষ্ট।

[ঝাড়খণ্ড নির্বাচনের সর্বশেষ ফলাফল জানতে ক্লিক করুন এখানে]

নাগরিকত্ব আইনের জেরেই যে তিনি বিজেপির উপরে বিশ্বাস হারালেন, দলত্যাগের পরে তা স্পষ্ট করে জানিয়েছেন লিপিকা। তিনি বলেন, “বিজেপির আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়েই যোগ দিয়েছিলাম। কিন্তু এখন আর তাদের ওপরে কোনো ভরসা রাখতে পারছি না।’

উল্লেখ্য, লিপিকা রায় বিজেপিতে থাকায় দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা হারানোর পরেও বিজেপি বেশ চাপে রাখতে পেরেছিল তৃণমূলকে। তৃণমূলের সংখ্যাগরিষ্ঠ সদস্যের মতামতকে গুরুত্ব না দিয়েই তিনি নিজের মতো করে জেলা পরিষদ চালানোর চেষ্টা করছিলেন। ফলে বিপাকে পড়ে গিয়েছিলেন জেলা প্রশাসনের কর্তারাও। বিষয়টি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীও।

এ বার অ্যাডভ্যান্টেজ পেয়ে গেল তৃণমূলই। জেলা পরিষদ চালাতে আর কোনো সমস্যা রইল না তাদের।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.