রণক্ষেত্র দার্জিলিং, গুলিতে মৃত্যু চার মোর্চা সমর্থকের, চলল লাঠি, কাঁদানে গ্যাস

0

দার্জিলিং: গোর্খাল্যান্ডের দাবিতে চলতি আন্দোলনে প্রথম মৃত্যুর খবর এল। শনিবার সকালে দার্জিলিং-এ গুলিতে চার মোর্চা সমর্থকের মৃত্যু হয়েছে। সিংমারিতে মোর্চার অফিসের কাছে মোর্চা সমর্থকরা পুলিশের কয়েকটি গাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেয় বলে অভিযোগ।

কে গুলি চালিয়েছে, তা নিয়ে যথারীতি চাপানউতোর শুরু হয়েছে। পুলিশের অতিরিক্ত ডিজি (আইনশৃঙ্খলা) অনুজ শর্মা মোর্চা সমর্থকদের ওপর গুলি চালানোর কথা অস্বীকার করেন। বলেন, মোর্চা সমর্থকরাই গুলি চালাচ্ছিল। গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার বক্তব্য, প্রতিবাদকারীদের ওপর পুলিশই গুলি চালিয়েছে। মোর্চার সহকারী সম্পাদক বিনয় তামাং-এর দাবি, সিংমারিতে পুলিশের গুলিতে তাঁদের এক সমর্থকের মৃত্যু হয়েছে।

Loading videos...

গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার কর্মসূচি অনুযায়ী শনিবার সকালে দলের সমর্থকরা পাহাড়ের বিভিন্ন জায়গায় মিছিল বের করে। গান্ধীজির পথ অনুসারে এর নাম দেওয়া হয়েছে ‘ডান্ডি মার্চ’। পুলিশ বিভিন্ন জায়গায় মিছিল আটকায়। রণক্ষেত্রর চেহারা নেয় দার্জিলিং। শহরের চকবাজার, সিংমারি প্রভৃতি জায়গা পুলিশ মিছিলের গতি রোধ করলে মিছিলকারীরা ইট ছুড়তে শুরু করে। পুলিশও পালটা কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে, লাঠি চালায়। এতে বেশ কিছু পুলিশ ও মোর্চা সমর্থক আহত হয়েছেন।

ওদিকে শুক্রবার সারাটা দিন মোটামুটি শান্ত থাকার পর যথারীতি রাতের অন্ধকারে তাণ্ডব চালাল গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার ক্যাডাররা। এই নিয়ে পর পর দু’ দিন এই তাণ্ডবলীলা চলল।

শুক্রবার শেষ রাতে মোর্চার সন্দেহভাজন সমর্থকরা দার্জিলিং থেকে ২৫ কিমি দূরে বিজনবাড়ি ব্লকে গোক ২ নম্বর পঞ্চায়েত অফিসে আগুন দেয়। বাড়িটির এক তলা পুড়ে ছাই হয়ে গিয়েছে। দার্জিলিং থেকে যে দু’টো রাস্তা গোক গিয়েছে, সেই দু’টো রাস্তাই অবরোধ করে মোর্চার সমর্থকরা।

 

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.