আগুন, কাঁদানে গ্যাস, গুলি, নামল সেনা, বন্‌ধ ডাকল মোর্চা, ফের অশান্ত পাহাড়

0
438
তিতাস পাল

দার্জিলিং: দীর্ঘ আড়াই দশক পর পাহাড়ে রাজ্য মন্ত্রিসভার বৈঠক। কোণঠাসা ‘মোর্চা’র জঙ্গি আন্দোলন। ইট বৃষ্টি, পুলিশের গাড়িতে আগুন। পালটা লাঠিচার্জ,কাঁদানে গ্যাস, শুন্যে গুলি পুলিশের। মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে পাহাড়ে নামানো হয়েছে সেনাবাহিনী। শান্ত পাহাড়ের বৃহস্পতিবারের চিত্র এটাই।

গত সোমবার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় পাহাড়ে আসার পর থেকেই বিভিন্ন ভাবে ক্ষোভ উগরে দিচ্ছিলেন মোর্চা সুপ্রিমো বিমল গুরুং। বৃহস্পতিবার দুপুরে দার্জিলিং-এর রাজভবনে মন্ত্রিসভার বৈঠক করেন মুখ্যমন্ত্রী। সেখানে ছিলেন রাজ্যের গুরুত্বপূর্ণ সব মন্ত্রী। সেই সময় রাজভবন থেকে ২ কিলোমিটার দূরে আলাদা রাজ্যের দাবিতে এবং পাহাড়ের স্কুলে বাংলা ভাষার পড়ানোর বিরোধিতায় ভানু ভবনের সামনে দু’ ঘণ্টার অনশনে বসেছিলেন বিমল গুরুং এবং হাজার দুয়েক মোর্চা সমর্থক।

বেলা তিনটে। রাজভবনে মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষ। হঠাৎ করেই মোর্চা সমর্থকরা বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে। পুলিশের দিকে ইট, বোতল ছুড়তে শুরু করে তারা। বেশ কয়েক জন পুলিশ কর্মী আহত হন। পুলিশ অবস্থা নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করলেও পরিস্থিতি আরও ঘোরালো হয়ে ওঠে। শুরু হয় পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর। মোর্চা সমর্থকদের দিকে বোমাও ছোড়া হয় বলে অভিযোগ। একের পর এক পুলিশের গাড়িতে আগুন লাগিয়ে দেওয়া হয়। আগুন দেওয়া হয় পুলিশের বুথেও। পুড়িয়ে দেওয়া হয় সরকারি বাস। মোর্চা সমর্থকদের হামলায় উত্তরবঙ্গের আইজি-সহ কম পক্ষে ৫০ জন পুলিশকর্মী আহত হয়েছেন।

এর পরে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে ব্যাপক লাঠিচার্জ শুরু করে পুলিশ। মোর্চা সমর্থকদের ছত্রভঙ্গ করতে ছোড়া হয় কাঁদানে গ্যাস। শুন্যে বেশ কয়েক রাউন্ড গুলিও ছোড়া হয়। ভানু ভবন ঘিরে ফেলে বিশাল পুলিশবাহিনী। ভেতরে আটকে রাখা হয় বিমল গুরুং-সহ মোর্চা কর্মীদের। এর মধ্যেই নিজেদের মধ্যে বৈঠক করে আগামী কাল বারো ঘণ্টা বন্‌ধের ডাক দেন মোর্চা-প্রধান বিমল গুরুং।

পুরো ঘটনায় ক্ষুদ্ধ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কারণ এখন পর্যটনের ভরা মরশুম। পাহাড়ে এই মুহূর্তে প্রায় ১০ হাজার পর্যটক রয়েছেন। এই অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতিতে আতংকিত, দিশেহারা হয়ে পড়েছেন তাঁরা। পর্যটকদের যাতে কোনো সমস্যার মধ্যে পড়তে না হয়, তার জন্য প্রশাসনকে নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। পর্যটকরা যাতে নিরাপদে সমতলে ফিরতে পারেন তার ব্যবস্থা করছে প্রশাসন।

২০১১-তে তৃণমূল কংগ্রেস ক্ষমতায় আসার পর ধীরে ধীরে শান্তি ফিরেছিল পাহাড়ে। কিন্তু ২০১৬-এর নির্বাচনের পর থেকেই উন্নয়ন-সহ বিভিন্ন ইস্যুতে রাজ্য সরকারের সঙ্গে মোর্চার বিরোধ শুরু হয়। সম্প্রতি পুরভোটে তৃণমূল মিরিক দখল করে এবং সামগ্রিক ভাবে পাহাড়ে ভালো ফল করায় রাজনৈতিক ভাবে তীব্র বিরোধিতা শুরু করে মোর্চা। এ দিনের ঘটনার পর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অভিযোগ করেছেন, মোর্চার কাছে আন্দোলন করার কোনো ইস্যু নেই তাই ফের পাহাড়ে অশান্তি পাকানোর চেষ্টা করছে তারা। বৃহস্পতিবারই তাঁর শিলিগুড়ি ফিরে আসার কথা থাকলেও, সূত্রের খবর পরিস্থিতির দিকে নজর রাখতে পাহাড়েই থাকছেন মুখ্যমন্ত্রী। পরিস্থিতি সামলাতে মন্ত্রিসভার সদস্য এবং প্রশাসনিক আধিকারিকদের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠক করছেন তিনি।

এক ক্লিকে মনের মানুষ,খবর অনলাইন পাত্রপাত্রীর খোঁজ

মতামত দিন

Please enter your comment!
Please enter your name here