দার্জিলিং: বিমল গুরুংয়ের শারীরিক অবস্থার বেশ কিছুটা অবনতি হয়েছে। আমরণ অনশনের পাঁচ দিনের মাথায় গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লেন তিনি। ১০৩ ঘণ্টা অনশনের পর রবিবার বিকেলে তাঁকে নিয়ে যাওয়া হল দার্জিলিং জেলা হাসপাতালে।

পাহাড়ে জিটিএ নির্বাচনে বিরোধিতায় আমরণ অনশনে বসার তৃতীয় দিন থেকেই বিমলের শারীরিক অবস্থার অবনতি হতে শুরু করেছিল। তখন থেকেই তাঁকে হাসপাতালে ভরতি করানোর পরামর্শ দিচ্ছিলেন চিকিৎসকেরা। এর পর অনশনের চতুর্থ দিন বিকেলের পর থেকে বিমলের শারীরিক পরিস্থিতি আরও খারাপ হতে শুরু করে। রাতে ফের চিকিৎসক আসেন অস্থায়ী অনশন মঞ্চে।

রবিবার সকালে অনশন মঞ্চে বিমলের সঙ্গে দেখা করতে এসেছিলেন বিজেপির এক দল সাংসদ ও বিধায়ক। সেই দলে ছিলেন দার্জিলিঙের সাংসদ সাংসদ রাজু বিস্তা, আলিপুরদুয়ারের সাংসদ জন বার্লা, কার্শিয়াং বিধায়ক বিপি বজগাই-সহ জিএনএলএফের নিরজ জিম্বা এবং সিপিআরএম-সহ পাহাড়ের কয়েকটি ছোট দলের প্রতিনিধিরা।

বিমলকে বেশ কিছুক্ষণ বিস্তা ও বার্লাদের সঙ্গে কথা বলতে দেখা যায়। সাক্ষাৎ শেষে বিজেপির সাংসদ-বিধায়কেরা এর পর সিংমারিতে মোর্চার দলীয় কার্যালয়ে বৈঠকেও বসেন। ২০২১ সালের নির্বাচনে এই বিজেপিরই বিরোধীতায় সরব হয়েছিলেন বিমল। ফলে এ দিনের বৈঠক অন্য প্রশ্নও তুলতে শুরু করেছে।

ঘটনাচক্রে, তার পরেই বিকেল নাগাদ আরও অসুস্থ হয়ে পড়লেন বিমল। মোর্চা সূত্রে খবর, হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলেও এখনও অনশন ভাঙেননি বিমল। মোর্চার সাধারণ সম্পাদক রোশন গিরি বলেন, ‘‘অনশন চলছেই। শুধু জায়গা বদল হয়েছে।”

আরও পড়তে পারেন:

সময়ের আগেই বর্ষা কেরলে, ঘোষণা করল মৌসম ভবন

কলকাতায় আরও এক উঠতি মডেলের রহস্যমৃত্যু, তীব্র চাঞ্চল্য

রাজ্যসভা নির্বাচনের প্রার্থীতালিকা প্রকাশ করল বিজেপি

এক বছরে জাল নোট বেড়েছে কয়েক গুণ, নোটবন্দি নিয়ে মোদীকে খোঁচা কংগ্রেস-তৃণমূলের

খবরের সব আপডেট পড়ুন খবর অনলাইনে। লাইক করুন আমাদের ফেসবুক পেজ। সাবস্ক্রাইব করুন আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

বিজ্ঞাপন