সিএএ, এনআরসি হবে না, দার্জিলিংয়েও হুংকার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের

দার্জিলিং: সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ও প্রস্তাবিত নাগরিকপঞ্জির বিরুদ্ধে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রতিবাদ রাজ্যের সমতল পেরিয়ে এ বার দেখা গেল পাহাড়েও। বুধবার দার্জিলিং শহরে মিছিলে হাঁটলেন তিনি। পা মেলালেন তৃণমূল, বিনয়পন্থী মোর্চার কর্মী-সমর্থক এবং সাধারণ মানুষ।

মিছিল শেষে চিরাচরিত ঢঙে মমতা বলেন, এ রাজ্যে কোনো ভাবেই সিএএ আর এনআরসি করতে দেবেন না তিনি।

এ দিন দার্জিলিংয়ের ভানু ভবন থেকে মিছিল শুরু হয়। নেহরু রোড ধরে পদযাত্রা সোজা কাকঝোরায় যায়। সেখান থেকে পদযাত্রা ফিরে আসে দার্জিলিংয়ের মোটর স্ট্যান্ড চাকবাজারে।

গোটা মিছিলেই সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। তাঁর হাতে ছিল একটি খঞ্জনি। মিছিলের পর সরাসরি কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তোপ দেগে এ দিন মমতা বলেন, “দিল্লিতে বৈঠকে সব রাজ্যে উপস্থিত হয়েছিল। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গ তার অবস্থানে অনড়। তাই রাজ্যের তরফে কেউ বৈঠকে যোগ দেয়নি।”

যতদিন না এই আইন বাতিল হচ্ছে তাঁর আন্দোলন থামবে না বলেও জানান মুখ্যমন্ত্রী।

সিএএ নিয়ে পাহাড়ের মানুষের একাংশের মধ্যে সন্দেহ তৈরি হয়েছে। আর সে কারণে বদলে যেতে শুরু করে পাহাড়ের রাজনৈতিক সমীকরণ। পাহাড়ে ইনার লাইন পারমিট চালু করার দাবিতে পোস্টার পড়েছে। পাহাড়ে সিএএ চালু করার আবেদন জানিয়েও পোস্টার পড়েছে।

এ দিনের পদযাত্রায় তৃণমূল আর মোর্চার কর্মী-সমর্থকরা ছাড়াও ছিলেন পাহাড়ের ১৬টি জনজাতি উন্নয়ন বোর্ডের সমর্থকেরা।

আরও পড়ুন পলাতক স্বঘোষিত ধর্মগুরুর বিরুদ্ধে নোটিশ জারি করল ইন্টারপোল

উল্লেখ্য, ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচন আর দার্জিলিং বিধানসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচনে বিশেষ প্রভাব ফেলতে পারেনি তৃণমূল আর বিনয়পন্থী মোর্চা। বাজিমাত করেছিল বিজেপিই। সেই ফলাফলের পর এ দিনই প্রথম পাহাড়ে কোনো রাজনৈতিক কর্মসূচী ছিল মুখ্যমন্ত্রীর।

Be the first to comment

Leave a Reply

Your email address will not be published.


*


This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.