কাঠমান্ডু: সাউথকলের কাছে পড়ে আছে পর্বতারোহী পরেশনাথের দেহ, সাড়ে সাত হাজার মিটার উচ্চতা থেকে তোলা শেরপাদের সেই ছবি বুধবার বিকেল থেকে ছড়িয়ে পড়েছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। ২০১৬-র এভারেস্ট অভিযান শেষে আর ঘরে ফেরা হয়নি দুর্গাপুরের পরেশ নাথের। গৌতম ঘোষ এবং পরেশ নাথের সঙ্গে ছিলেন সুনীতা হাজরা এবং সুভাষ পাল। মৃত্যুর সঙ্গে লড়াই করে ঘরে ফিরেছিলেন একমাত্র সুনীতা। আর ফিরেছিল সুভাষের দেহ। অভিযানের সময় শেষ হয়ে আসায়, উদ্ধারকাজ চালানো সম্ভব হয়নি গত বছর। সেই থেকে হিমালয়ের বুকেই ঘুমিয়ে ছিলেন ওরা দু’জন – গৌতম আর পরেশ।

আরও পড়ুন; এভারেস্ট থেকে দেহ ফেরাতে এজেন্সি নিয়োগ করল গৌতমের পরিবার

সপ্তাহ তিনেক আগে গৌতমের দেহ উদ্ধারের জন্য এজেন্সি নিয়োগ করেছে তাঁর পরিবার। পরেশ নাথের পরিবারের পক্ষে সম্ভব হয়নি তা। দেহের খোঁজ মিললেও তা সমতলে নিয়ে আসা আদৌ সম্ভব কিনা, তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। ২০১৬-র অভিযানে পরেশ নাথের সঙ্গী এভারেস্টজয়ী মলয় মুখার্জি জানালেন, “দীর্ঘ এক বছরে পরেশদার পরিবার ওঁর দেহ ফিরে পাবার আশা ছেড়েই দিয়েছিলেন, তবে শেষ দেখাটুকু তো সবাই দেখতে চায়। অনেক ধনী দেশও কিন্তু এক্ষেত্রে উদ্যোগী হতে চায় না, সে জায়গায় দাঁড়িয়ে আমাদের রাজ্যের সরকার যদি কোনো পদক্ষেপ করেন, তা নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয় হবে।” ‘ওয়েস্টবেঙ্গল অ্যাডভেঞ্চার স্পোর্টস অ্যান্ড মাউন্টেনিয়ারিং ফাউন্ডেশন'(ডব্লিউবিএএমএফ)-এর অ্যাডভাইজার দেবদাস নন্দীর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, “নতুন করে দেহের খোঁজ পাওয়া গিয়েছে বললে ভুল বলা হবে। গত বছর রাজ্য সরকারের উদ্ধারকারী দল এমন ভাবে পরেশ নাথের দেহটি রেখে এসেছিল, সাধারণ তুষারপাতের কারণে তা স্থানচ্যুত হওয়া অসম্ভব”। তবে এখন দেহ ফিরিয়ে আনার ব্যাপারে সরকারের তরফ থেকে উদ্যোগ নেওয়া হবে কিনা, সে প্রসঙ্গে কোনো মন্তব্য করেননি দেবদাসবাবু।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here