hooch-death

শান্তিপুর: বিষমদ কাণ্ডে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১১। বৃহস্পতিবার ভোরে মৃত্যু হয় গদাধর মাহাত নামে এক ব্যক্তির। অসুস্থ হয়েছেন ২৫ জন। এই ঘটনায় জড়িত সন্দেহে এখনও পর্যন্ত চার জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পাশাপাশি ক্লোজ করা হয়েছে শান্তিপুর থানার ওসিকে।

মঙ্গলবার রাতে চোলাই মদ খাওয়ার পর থেকেই একে একে অসুস্থ বোধ করতে শুরু করেন অনেকে। বুধবার সকাল থেকে শান্তিপুরের চৌধুরীপাড়ায় মৃত্যুর মিছিল লেগে যায়। এই মদ বিক্রির জন্য যার বিরুদ্ধে মূল অভিযোগ, সেই চন্দন মাহাতরও মৃত্যু হয়েছে। মারা গিয়েছে চন্দনের ভাই লক্ষ্মীও। চন্দনের বাবা এবং মা অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি।

আরও পড়ুন হিন্দু ভাবাবেগে আঘাত দেওয়ার অভিযোগ, যোগী আদিত্যনাথকে আইনি নোটিশ

বিষমদ খেয়ে মৃত্যুর ঘটনা সামনে আসার পর কল্যাণীতে দিদির বাড়ি পালিয়ে যায় চন্দন ও তার ভাই লক্ষ্মী। সেখানে অসুস্থতা বোধ করায় তাদের কল্যাণী জেএনএম হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন চন্দনকে পুলিশ গ্রেফতার করে। রাত ৯টা নাগাদ মৃত্যু হয় চন্দনের। ঘণ্টাখানেক পর মারা যায় লক্ষ্মীও।

ঘটনার তদন্তে নেমে চন্দন ছাড়া আরও চার জনকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ধৃতদের নাম সাধন বিশ্বাস, জয়দেব সাঁতরা, জয়ন্তী মাহাত ও গুছিয়া মাহাত।  গোটা ঘটনার তদন্তের ভার দেওয়া হয়েছে সিআইডিকে । মৃতদের পরিবারপিছু ২ লক্ষ টাকার ক্ষতিপূরণের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এ দিকে, বিষমদ খেয়ে মৃত্যুর জেরে ক্লোজ় করা হল শান্তিপুর থানার ওসি সৌরভ চট্টোপাধ্যায়কে। ওই থানার নতুন ওসি হয়েছেন মুকুন্দ চক্রবর্তী। শান্তিপুর থানা সূত্রে খবর, সৌরভ চট্টোপাধ্যায়কে সরানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বুধবার রাতেই। ধানতলা থানার মুকুন্দ চক্রবর্তীকে শান্তিপুরের দায়িত্ব বুঝে নেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হয়।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here