Connect with us

রাজ্য

পাকিস্তানের মতোই যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের হুমকি দিলীপের!

Published

on

Dilip Ghosh

ওয়েবডেস্ক: যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়র হেনস্থাকাণ্ডে চরম হুঁশিয়ারি দিলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। শুক্রবার দলের রাজ্য দফতরে বসে সাংবাদিক বৈঠকে দিলীপ বলেন, “যারা বাবুলকে মেরেছে, তাদের কী ওষুধ দিতে হবে, তা আমার জানা রয়েছে”। একই সঙ্গে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে কমিউনিস্টদের ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দেওয়ার হুমকিও দেন তিনি।

এ দিন দিলীপ বলেন, “পাকিস্তানে যেমন সার্জিক্যাল স্ট্রাইক হয়েছিল, তেমনই যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়েও সার্জিক্যাল স্ট্রাইক করে কমিউনিস্টদের ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দেব। আমরা চুপ রয়েছি বলে যদি কেউ এটাকে আমাদের দুর্বলতা ভাবে, তা হলে সেটা তাদের ভুল৷ ওরা যে ভাষা বোঝে সেই ভাষাতেই, উত্তর দেওয়া হবে”।

কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর হেনস্তার প্রতিবাদে রাজ্য দফতর থেকে ধর্মতলার ডোরিনা ক্রসিং পর্যন্ত মিছিল করে এবিভিপি। ওই মিছিলে অংশ নেন বাবুল, রাজু বন্দ্যোপাধ্যায়, অগ্নিমিত্রা পাল-সহ অনেকেই। কিছুক্ষণ পরেই যাদবপুরকাণ্ডের প্রতিবাদে সাংবাদিক বৈঠক করেন দিলীপ।

Loading videos...

তিনি বলেন, “যে বাবুলের চুল ধরে টেনেছে, তার ঠিকুজি-কুষ্ঠি বের করেছি। আগে ওদের দেশবিরোধী বলতাম, এ বার ওদের সমাজবিরোধী বলব। ছ’ঘণ্টা ধরে একজন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীকে আটকে রাখা হল। তাঁকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখানো হল। নিগ্রহ করা হল। এর পরেও কিছু মানুষ এদের সমর্থনে কথা বলছে। কোনো শুভবুদ্ধি সম্পন্ন মানুষ এই কাজকে সমর্থন করতে পারে না”।

এ দিন যাদবপুরকাণ্ডের প্রতিবাদে একগুচ্ছ কর্মসূচি নেয় রাজ্য বিজেপি এবং এবিভিপি। রাজভবনে গিয়ে রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করেন মুকুল রায়। তাঁর সঙ্গে ছিলেন দলীয় সাংসদ অর্জুন সিং। মুকুল বলেন, রাজ্যে আইনশৃঙ্খলা বলে কিছু নেই। বৃহস্পতিবারের ঘটনা গণতন্ত্রের লজ্জা। রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস ক্ষমতায় থাকার নৈতিক অধিকার হারিয়েছে।

কতকটা একই ঢঙে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করেন দিলীপ। তিনি বলেন, “বাবুলের উপর হামলা হোক, সেটা মুখ্যমন্ত্রীও চেয়েছিলেন”।

রাজ্য

শুভেন্দু অধিকারীর সিদ্ধান্তকে ‘স্বাগত’ জানালেন মুকুল রায়

“শুভেন্দু আমাদের সঙ্গে যোগ দিলে আমরা খুশি হব”, বললেন মুকুল রায়।

Published

on

মুকুল রায় এবং শুভেন্দু অধিকারী। ফাইল ছবি

কলকাতা: মন্ত্রিসভা থেকে ইস্তফা দেওয়ার পর শুভেন্দু অধিকারী (Suvendu Afhikari) কি ধাপে ধাপে বিজেপি শিবিরের দিকেই এগিয়ে যাচ্ছেন? শুক্রবার এমন প্রশ্নেই উত্তাল রাজ্য-রাজনীতি। প্রাক্তন তৃণমূল নেতা তথা বর্তমানে বিজেপির সর্বভারতীয় সহ-সভাপতি মুকুল রায় (Mukul Roy) ‘স্বাগত’ জানালেন শুভেন্দুর সিদ্ধান্তকে।

শোনা যাচ্ছে শুভেন্দুর বিরুদ্ধে দলের একাংশে অভিযোগ, সরকারি একাধিক পদে থেকেও কেন তিনি অরাজনৈতিক সভা করছেন? সেই অভিযোগের জবাব দিতেই তিনি একে একে পদ ছেড়ে দিচ্ছেন। এ প্রসঙ্গে মুকুল রায় বলেন, “শুভেন্দুর সিদ্ধান্তকে স্বাগত। ব্যক্তিগত ভাবে মনে করি, শুভেন্দু গণআন্দোলন থেকে উঠে আসা নেতা। তিনি আমাদের সঙ্গে যোগ দিলে আমরা খুশি হব”।

তৃণমূল ছাড়ার ব্যাপারে নিজের কথা তুলে ধরে মুকুল বলেন, “তৃণমূল ছাড়ার যথাযথ কারণ তৈরি হয়েছিল বলেই আমি বেরিয়ে এসেছিলাম। ওই দল এখন এমন ভবে চলছে, তাতে যাঁরা দলের সঙ্গে প্রথম থেকে ছিলেন, তাঁদের পক্ষে দলে থাকা অসম্ভব হয়ে উঠেছে। ফলে তাঁরা বেরিয়ে আসছেন”।

Loading videos...

শুভেন্দু কি বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন? এমন প্রশ্নে ধোঁয়াশা রেখেই মুকুল বলেন, “বাংলার মাটিতে যখন ১ লক্ষ ৭৫ মানুষের রক্তের বিনিময়ে তৃণমূল সরকার তৈরি হয়েছিল। শুভেন্দু এক জন গণআন্দোলনের নেতা। ফলে তিনি আমাদের সঙ্গে যোগ দিলে ভালো হবে। আমি তো খুশি হব-ই, তবে এটা তাঁর ব্যক্তিগত রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত। বাংলার মানুষ চাইছে এই সরকারের পরিবর্তন হোক। এই সময়ের পরিপ্রেক্ষিতে দাঁড়িয়ে বাংলার মানুষ কী চাইছে, সেটা দেখতে হবে”।

এ দিন রাজ্যের পরিবহণ, সেচ এবং জলসম্পদ দফতর থেকে ইস্তফা দেন শুভেন্দু। শুভেন্দুর মন্ত্রিত্ব ছাড়াকে তিনি তৃণমূলের শেষের শুরু বলে ব্যাখ্যা করে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, “তাঁর জন্য বিজেপির দরজা খোলা রয়েছে। তৃণমূলের অনেক নেতা বিজেপিতে যোগ দেওয়ার জন্য মুখিয়ে রয়েছেন”।

আরও পড়তে পারেন: মন্ত্রিত্ব ছেড়ে দিলেন শুভেন্দু অধিকারী

Continue Reading

রাজ্য

এখনই দলের বিধায়কপদ ছাড়ছেন না শুভেন্দু অধিকারী?

এখনই বিধায়কপদ ছাড়ছেন না শুভেন্দু, দাবি ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে।

Published

on

শুভেন্দু অধিকারী। ফাইল ছবি

কলকাতা: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Mamata banerjee) কাছে নিজের ইস্তফাপত্র পাঠিয়ে দিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী (Suvendu Adhikari)। তবে এখনই ‘আশা’ ছাড়ছে না তৃণমূল (TMC)।

মন্ত্রিত্বে থেকেও কেন তিনি অরাজনৈতিক ব্যানারে সভা করছেন, এমন প্রশ্নই উঠেছিল দলের অন্দরে। সেই প্রশ্নের জবাব দিতেই শুক্রবার শুভেন্দু পদত্যাগ করলেন বলে জানা যায়।

গত বৃহস্পতিবার হুগলি নদী ব্রিজ কমিশনারের চেয়ারম্যানপদ ছেড়ে দেন শুভেন্দু। এ দিন সকালেই জানা যায়, তিনি সরকারি নিরাপত্তা ছেড়ে দেওয়ার আবেদন জানিয়েছেন। এর পরই বেলা দেড়টা নাগাদ মন্ত্রিত্ব থেকে তাঁর ইস্তফাপত্র প্রকাশ্যে আসে। একই ভাবে এ দিনই তিনি হলদিয়া উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্যানের পদ থেকেও ইস্তফা দেন।

Loading videos...

বেশ কয়েকদিন ধরেই শুভেন্দুর সঙ্গে দলের ‘দূরত্ব’ তৈরি হয়। যা ঘোচাতে তাঁর সঙ্গে একাধিক বার বৈঠক করেন তৃণমূলের প্রবীণ সাংসদ সৌগত রায়। এ দিন মন্ত্রিত্ব থেকে শুভেন্দুর ইস্তফা দেওয়ার পর সৌগত বলেন, “উনি এখনও দলের বিধায়কপদে রয়েছেন। দলের প্রাথমিক সদস্য। ফলে যত দিন তিনি দলে রয়েছেন, বিধায়কপদে রয়েছেন, তত দিন আশা রয়েছে। তিনি (শুভেন্দু) এর আগেও কথা বলেছেন। আগামীতেও কথা বলতে রাজি রয়েছেন। তা হলে কি করে আশা ছেড়ে দেব? উনি যদি চূড়ান্ত ভাবে দল ছেড়ে দেন, তখন দল নিজের মতো সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেবে”।

শুভেন্দু দল ছাড়বেন না আশাপ্রকাশ করে সৌগত বলেন, “আমার সঙ্গে বারবার কথা হয়েছে। আমার মনে হয়েছি, শুভেন্দু দল ছাড়ার সিদ্ধান্ত নেবেন না। সবাই যাতে দলে থাকেন, সেই চেষ্টাই করব। শুভেন্দুকেও বলব। দেখা যাক, কী হয়”?

অন্যদিকে শুভেন্দু ঘনিষ্ঠদের মতে, “রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার সময় বিধায়কপদ ছাড়তে পারেন। তবে এখন সাধারণ বিধায়ক হয়েই থাকবেন শুভেন্দু”। আগামী শনিবার শুভেন্দুর দিল্লি যাওয়ার জল্পনা তৈরি হয়। যদিও শুভেন্দুর ঘনিষ্ঠ মহল সূত্রে সেই সম্ভাবনার কথা খারিজ করে দেওয়া হয়।

এ ব্যাপারে শুভেন্দুর পরিবারের তরফে বিশেষত, তাঁর বাবা শিশির অধিকারী (যিনি পূর্ব মেদিনীপুরের তৃণমূল চেয়ারম্যান) কোনো মন্তব্য করেননি। তবে পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, শুভেন্দু যে সমস্ত পদে রয়েছেন, তা একে একে ছেড়ে দেবেন। যেহেতু শুভেন্দু এবং পরিবারের অন্য়ান্য সদস্যদের একাধিক পদে থাকা নিয়ে দলের মধ্যে বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে, তাই তিনি সরকারি পদগুলি ছেড়ে দিলেও এখনই তৃণমূল ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেননি।

আরও পড়তে পারেন: মন্ত্রিত্ব ছেড়ে দিলেন শুভেন্দু অধিকারী

Continue Reading

রাজ্য

মন্ত্রিত্ব ছেড়ে দিলেন শুভেন্দু অধিকারী

মন্ত্রিত্ব ছাড়ার পর তাঁর দলত্যাগের বিষয়টিও স্পষ্ট হয়ে গেল!

Published

on

শুভেন্দু অধিকারী। ফাইল ছবি

খবর অনলাইন ডেস্ক: জল্পনাই সত্যি হল! মন্ত্রিত্ব ছেড়ে দিলেন পরিবহণমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। গত আগস্ট মাস থেকে দলের সঙ্গে তাঁর যে দূরত্ব তৈরি হয়েছিল, এ দিন মন্ত্রিত্ব ছাড়ার সঙ্গে সঙ্গেই তা একটি বৃত্ত পূরণ করে ফেলল।

গত বৃহস্পতিবার হুগলি নদী ব্রিজ কমিশনারের চেয়ারম্যান পদ ছেড়ে দেন। একই ভাবে সরকারি নিরাপত্তা ছেড়ে দেওয়ার আবেদনের পর তাঁর মন্ত্রিত্বপদে ইস্তফা দেওয়া নিয়ে জোরালো জল্পনা শুরু হয়। শুক্রবার বেলা দেড়টা নাগাদ তাঁর ইস্তফাপত্রটি প্রকাশ্যে আসে। পাশাপাশি পরিবহণ এবং সেচ দফতরের হোয়াটসঅ্যাপ গ্রুপ থেকেও বেরিয়ে যান শুভেন্দু। এমনকী হলদিয়া উন্নয়ন পর্ষদের চেয়ারম্যানপদ থেকেও ইস্তফা দেন।

এ দিন সকালেই জানা যায়, সরকারি নিরাপত্তা ছেড়ে দেওয়ার জন্য আবেদন জানিয়েছেন শুভেন্দু। (আরও পড়ুন: সরকারি নিরাপত্তা ছাড়ছেন শুভেন্দু অধিকারী)

Loading videos...

এর পরই প্রকাশ্যে আসে শুভেন্দুর ইস্তফাপত্র। যেখানে তিনি লিখেছেন, “মন্ত্রিত্বপদ থেকে আমি ইস্তফা দিলাম। সরকারি ভাবে এই ইস্তফাপত্রটি দ্রুত গ্রহণ করা হোক। আমাকে রাজ্যের মানুষের সেবা করার সুযোগ দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ। আমি নিষ্ঠার সঙ্গে আমার কর্তব্য পালন করেছি”। এই ইস্তফাপত্র তিনি রাজ্যপাল জগদীপ ধানখড়কেও পাঠান।

রাজ্যপাল জগদীপ ধানখড় টুইট করে জানান, “আমি শুভেন্দু অধিকারীর কাছ থেকে পদত্যাগপত্র পেয়েছি। আমি সংবিধান মেনেই উপযুক্ত পদক্ষেপ করব”।

তবে তৃণমূল কংগ্রেস চাইছে না, শুভেন্দু ভোটের আগে দল ছেড়ে দিন। পদত্যাগী মন্ত্রীর সঙ্গে দল কথা কথা চালিয়ে যাবে বলে এ দিন জানান তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায়। তিনি বলেন, “ও পদত্যাগ করলে আমরা কী করতে পারি। তবে দলের নির্দেশে ওর সঙ্গে কথা বলেছিলাম। দল বললে ফের বলব”।

রাজ্যের পরিবহণ, সেচ এবং জলসম্পদ দফতরের মন্ত্রী ছিলেন শুভেন্দু। ২০০৯ তমলুক লোকসভা ভোটে তৎকালীন সিপিএম নেতা লক্ষ্মণ শেঠকে হারিয়ে সাংসদ হন। ২০১৪ সালেও সাংসদ হন। তা হলে কি বিজেপিতেই যোগ দেবেন শুভেন্দু?

এ প্রসঙ্গে বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, “ওঁর পদত্যাগ সময়ের অপেক্ষায় ছিল। শুভেন্দু যোগ্য রাজনীতিক। তিনি চাইলে বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন। তাঁর মতো নেতার জন্য বিজেপির দরজা খোলা রয়েছে। তবে শুভেন্দু নন, তাঁর মতো অনেকেই রয়েছে”।

আরও পড়তে পারেন: এখনই দলের বিধায়কপদ ছাড়ছেন না শুভেন্দু অধিকারী?

Continue Reading
Advertisement
Advertisement

কেনাকাটা

কেনাকাটা1 day ago

শীতের নতুন কিছু আইটেম, দাম নাগালের মধ্যে

খবর অনলাইন ডেস্ক: শীত এসে গিয়েছে। সোয়েটার জ্যাকেট কেনার দরকার। কিন্তু বাইরে বেরিয়ে কিনতে যাওয়া মানেই বাড়ি এসে এই ঠান্ডায়...

কেনাকাটা3 days ago

ঘর সাজানোর জন্য সস্তার নজরকাড়া আইটেম

খবর অনলাইন ডেস্ক: ঘরকে একঘেয়ে দেখতে অনেকেরই ভালো লাগে না। তাই আসবারপত্র ঘুরিয়ে ফিরে রেখে ঘরের ভোলবদলের চেষ্টা অনেকেই করেন।...

কেনাকাটা6 days ago

লিভিংরুমকে নতুন করে দেবে এই দ্রব্যগুলি

খবর অনলাইন ডেস্ক: ঘরের একঘেয়েমি কাটাতে ও সৌন্দর্য বাড়াতে ডিজাইনার আলোর জুড়ি মেলা ভার। অ্যামাজন থেকে তেমনই কয়েকটি হাল ফ্যাশনের...

কেনাকাটা1 week ago

কয়েকটি প্রয়োজনীয় জিনিস, দাম একদম নাগালের মধ্যে

খবর অনলাইন ডেস্ক: কাজের সময় হাতের কাছে এই জিনিসগুলি থাকলে অনেক খাটুনি কমে যায়। কাজও অনেক কম সময়ের মধ্যে করে...

কেনাকাটা3 weeks ago

দীপাবলি-ভাইফোঁটাতে উপহার কী দেবেন? দেখতে পারেন এই নতুন আইটেমগুলি

খবর অনলাইন ডেস্ক : সামনেই কালীপুজো, ভাইফোঁটা। প্রিয় জন বা ভাইবোনকে উপহার দিতে হবে। কিন্তু কী দেবেন তা ভেবে পাচ্ছেন...

কেনাকাটা4 weeks ago

দীপাবলিতে ঘর সাজাতে লাইট কিনবেন? রইল ১০টি নতুন কালেকশন

খবরঅনলাইন ডেস্ক: আসছে আলোর উৎসব। কালীপুজো। প্রত্যেকেই নিজের বাড়িকে সুন্দর করে সাজায় নানান রকমের আলো দিয়ে। চাহিদার কথা মাথায় রেখে...

কেনাকাটা2 months ago

মেয়েদের কুর্তার নতুন কালেকশন, দাম ২৯৯ থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক: পুজো উপলক্ষ্যে নতুন নতুন কুর্তির কালেকশন রয়েছে অ্যামাজনে। দাম মোটামুটি নাগালের মধ্যে। তেমনই কয়েকটি রইল এখানে। প্রতিবেদন...

কেনাকাটা2 months ago

‘এরশা’-র আরও ১০টি শাড়ি, পুজো কালেকশন

খবর অনলাইন ডেস্ক : সামনেই পুজো আর পুজোর জন্য নতুন নতুন শাড়ির সম্ভার নিয়ে হাজর রয়েছে এরশা। এরসার শাড়ি পাওয়া...

কেনাকাটা2 months ago

‘এরশা’-র পুজো কালেকশনের ১০টি সেরা শাড়ি

খবর অনলাইন ডেস্ক : পুজো কালেকশনে হ্যান্ডলুম শাড়ির সম্ভার রয়েছে ‘এরশা’-র। রইল তাদের বেশ কয়েকটি শাড়ির কালেকশন অ্যামাজন থেকে। প্রতিবেদন...

কেনাকাটা2 months ago

পুজো কালেকশনের ৮টি ব্যাগ, দাম ২১৯ টাকা থেকে শুরু

খবর অনলাইন ডেস্ক : এই বছরের পুজো মানে শুধুই পুজো নয়। এ হল নিউ নর্মাল পুজো। অর্থাৎ খালি আনন্দ করলে...

নজরে