শুশ্রূষার বদলে প্রসূতিকে সপাটে চড় চিকিৎসকের! অভিযোগে তোলপাড় ঝাড়গ্রাম

0
অভিযুক্ত চিকিৎসক

সমীর মাহাত, ঝাড়গ্রাম: শুশ্রূষার বদলে প্রসূতিকে সপাটে চড়! এমন অভিযোগেই উত্তেজনা ছড়াল ঝাড়গ্রাম জেলা সুপার স্পেশালিটি হাসপাতাল। অভিযোগ খতিয়ে দেখে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিয়েছেন জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক। যদিও অভিযুক্ত চিকিৎসকের মুখে কুলুপ।

হাসপাতাল ও স্থানীয় সুত্রে জানা গিয়েছে, প্রসব বেদনা নিয়ে, গত মঙ্গলবার পুরনো ঝাড়গ্রাম এলাকার রোগী প্রীতি সিংহদেব এখানে ভর্তি হন। বুধবার সকালে তাঁর প্রসবকালীন চিকিৎসা করেন প্রসূতি বিভাগের চিকিৎসক ডা. হিমাংশু রায়।

প্রত্যক্ষদর্শীদের অভিযোগ, প্রসবকালীন রোগী “আস্তে আস্তে” বলে চিৎকার করলে, এই চিকিৎসক সপাটে চড় মারেন প্রীতিদেবীকে। রোগীর কানের পাশে, গালে লাল হয়ে ফুলে ওঠে ও যন্ত্রণা হয়। এর পরই পরিবারের লোকজন ও অন্যান্য রোগীর পরিজনেরা উত্তেজিত হয়ে বিক্ষোভ দেখানে শুরু করেন।

ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনে অভিযুক্ত চিকিৎসকে উদ্ধার করে। প্রত্যক্ষদর্শী বেবী নাগ জানান, ” আমার মেয়ে এখান তিন-চার দিন ভর্তি আছে। দেখলাম, এমন মারল, সঙ্গে সঙ্গে লাল হয়ে গেল। পরে বলছে, এখানে খুব যন্ত্রণা হচ্ছে। আমি দেখলাম বলে প্রতিবাদ করলাম। না প্রতিবাদ করে উপায় ছিল না।”

রোগীর অভিভাবক মৃন্ময় সিংহদেব পুলিশের সামনেই বলেন, “একজন প্রসূতিকে মারার অধিকার কে দিয়েছে?” চিকিৎসকের শাস্তির দাবি জানান উত্তেজিত রোগীর পরিজনেরা। পুলিশ ব্যবস্থা না নিলে, তাঁরা “যতদূর” যেতে হয়, যাবেন বলেও জানান।

এ ব্যাপারে জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক, ডা. অশ্বিনীকুমার মাঝি বলেন, “আমাদের চিকিৎসক ডা. হিমাংশু রায়ের বিরুদ্ধে একটা অভিযোগ পাওয়া গিয়েছে। অভিযোগ খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।” সাংবাদিকের পক্ষ থেকে অভিযোগের সত্যতা জানতে চাওয়া হলে, কোনো মন্তব্য করেননি অভিযুক্ত চিকিৎসক ডা. হিমাংশু রায়।

------------------------------------------------
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।
সুস্থ, নিরপেক্ষ সাংবাদিকতার স্বার্থে খবর অনলাইনের পাশে থাকুন।সাবস্ক্রাইব করুন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.