dr. r ahmed dental college and hospital

কলকাতা:  ডাক্তাররা কনফারেন্সে যাওয়ায় লাটে চিকিৎসা পরিষেবা। এই অভিযোগ উঠেছে শিয়ালদার আর আহমেদ ডেন্টাল কলেজ হাসপাতালের বিরুদ্ধে।

শনিবার সকাল থেকেই চরম হয়রানির শিকার হন হাসপাতালে আসা রোগীরা। জানা যায়, সল্ট লেকে একটি কনফারেন্সে যোগ দিতে গিয়েছেন ডাক্তাররা। কী ভাবে একটি ডেন্টাল কলেজের সমস্ত ডাক্তার এক সঙ্গে হাসপাতালে তালা ঝুলিয়ে কনফারেন্সে গেলেন, সেটা নিয়ে বির্তক তৈরি হয়েছে চিকিৎসক মহলে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, সল্টলেকে আয়োজিত ওই কেন্দ্রীয় কনফারেন্সে ডাক্তারদের বিশেষ প্রশিক্ষণ শিবির চলছিল। সেই প্রশিক্ষণ শিবিরেই যোগ দিতে বিভিন্ন বিভাগের সব ডাক্তার সেখানে চলে যান। তার জন্য হাসপাতালের জরুরি বিভাগ, আউটডোর, অস্ত্রোপচার-সহ বিভিন্ন বিভাগে এ দিন কোনো ডাক্তার ছিল না।

এ দিন আর আহমেদ হাসপাতালে দাঁতের অস্ত্রোপচার ছিল পুরুলিয়ার বাসিন্দা রাঘব মণ্ডলের। তাঁর অভিযোগ, তাঁকে শনিবার সকাল ১০টায় আসতে বলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। কিন্তু হাসপাতালে এসে দেখা যায় তালা ঝুলছে অস্ত্রোপচার বিভাগে। পাশের ঘরে দেখা গেল সমস্ত যন্ত্রপাতি রয়েছে। অথচ কোনো ডাক্তার নেই। এত দূর থেকে এখানে চিকিৎসার জন্য এসে কোনো চিকিৎসা না পেয়ে তাঁকে ফিরে যেতে হচ্ছে।

হাসপাতালের প্রিন্সিপ্যাল তপনকুমার গিরিকে এই বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে, তিনি কেন্দ্রীয় কনফারেন্সের উপর সমস্ত দায় চাপান। বলেন, এই কনফারেন্সে সব ডাক্তারকে উপস্থিত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। তাই তাঁরা সবাই সেখানে উপস্থিত ছিলেন। কিন্ত কেন সব ডাক্তার এক সঙ্গে এই ট্রেনিং শিবিরে গেলেন? সেই প্রশ্নের কোনো সদুত্তর তিনি দিতে পারেননি।

রাজ্যের স্বাস্থ্যশিক্ষা অধিকর্তা দেবাশিস ভট্টাচার্য বলেন, “এই বিষয়ে আমার কাছে অভিযোগ জমা পড়েছে। আর আহমেদ ডেন্টাল কলেজের এই ঘটনা স্বাস্থ্য দফতর তদন্ত করে দেখবে। হাসপাতালের প্রিন্সিপ্যালের কাছ থেকে রিপোর্ট চেয়ে পাঠানো হয়েছে। তদন্তে যদি এই ঘটনা সত্যি প্রমাণিত হয়, তা হলে ওই হাসপাতালের ডাক্তারের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করবে রাজ্যের স্বাস্থ্য দফতর।”

 

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here