রাজ্য মেডিক্যাল কাউন্সিলের অফিসের সামনে ডাক্তারদের অবস্থান কর্মসূচি। নিজস্ব চিত্র।

নিজস্ব প্রতিনিধি: রাজ্য মেডিক্যাল কাউন্সিল নির্বাচনে রিগিংয়ের অভিযোগে কাউন্সিলের অফিসের সামনে অবস্থানে বসেন ডাক্তাররা। ডাক্তারদের বিভিন্ন সংগঠনের যৌথ উদ্যোগে বুধবার এই অবস্থান চলে। বিক্ষুব্ধ ডাক্তারদের অভিযোগ, তাঁরা   ব‍্যালটবাহী খাম পেয়েছেন, কিন্তু তার ভেতরটা ফাঁকা। অর্থাৎ ভেতরে কোনো ব‍্যালটপেপারই নেই। তাঁদের অভিযোগ, প্রহসন চলছে রাজ্য মেডিক্যাল কাউন্সিল নির্বাচন ঘিরে। এ নিয়ে আইনি পদক্ষেপ নেওয়ার কথাও চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে।

রাজ্য মেডিক্যাল কাউন্সিল নির্বাচন ঘিরে রিগিংয়ের অভিযোগ তুলে ডাক্তাররা বলছেন, এর আগে তাঁরা পঞ্চায়েত নির্বাচনে মৃত্যুর মিছিল দেখেছেন। বিধানসভা লোকসভা নির্বাচনে অস্ত্রের প্রদর্শন দেখেছেন। এই সব নির্বাচনে বুথের ভেতর কী হয়েছে অথবা ইভিএম মেশিনে কী কারচুপি হয়েছে সরাসরি চোখে দেখা যায়নি। এ বার সামনে রয়েছে ওয়েস্ট বেঙ্গল মেডিক্যাল কাউন্সিলের নির্বাচন। সেই নির্বাচন ঘিরে হতে চলেছে আর এক প্রহসন। তাঁরা বলছেন, নির্বাচন ঘিরে যে কাণ্ডকারখানা চলছে তাতে বোঝা যায় বর্তমানে ওয়েস্ট বেঙ্গল মেডিক্যাল কাউন্সিলের কর্তাব্যক্তিদের না আছে লজ্জা না আছে গণতন্ত্রের ওপরে এতটুকু শ্রদ্ধা।

ডক্টর্স ফোরামের সাংবাদিক সম্মেল্পন। নিজস্ব চিত্র।

মেডিক্যাল কাউন্সিলের নির্বাচনের নিয়ম হল সমস্ত রেজিস্টার্ড ডাক্তারবাবু তাঁর নির্দিষ্ট ঠিকানায় নির্দিষ্ট দিনের মধ্যেই ব‍্যালটপেপার পেয়ে যাবেন। বাই পোস্ট। ডাক্তার ভদ্রলোক ভাবনাচিন্তা করে ভোট দিয়ে সেটা আবার বাই পোস্টে নির্বাচন আধিকারিকের কাছে পাঠিয়ে দেবেন। ব‍্যস্ত মানুষের জন্য ভোট দেওয়ার সহজ পদ্ধতি।

২০ জুলাই থেকে পোস্টালে ডাক্তারদের কাছে ব্যালটপেপার পাঠানো শুরু হয়েছে। বিভিন্ন সরকারি হাসপাতালের ডাক্তারবাবুরা মঙ্গলবার থেকেই অভিযোগ জানাতে থাকেন তাঁরা খালি খাম পেয়েছেন। উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল, সাগর দত্ত, বাঁকুড়া সম্মিলনী, মালদা-সহ বিভিন্ন জায়গায় ডাক্তারদের কাছে পৌঁছোনো খামে দেখা যাচ্ছে ৬০ শতাংশ খাম খালি। তাতে কোনো ব্যালটপেপার নেই। খালি খামের ভিডিও ও ছবি তুলে পাঠানো হয়েছে কাউন্সিলের কাছে।

ডাক্তারদের অভিযোগ, এ বার গোড়া থেকেই চিকিৎসকদের হুমকি দেওয়া চলছে। এ বার ফাঁকা খাম এল। আসলে কাউন্সিলের ক্ষমতাসীন গোষ্ঠী ব‍্যালটগুলি নিজেরাই রেখে দিয়ে শূন্য খাম পাঠিয়েছেন। ব‍্যালট পেপারে তাঁরা ইচ্ছামতো ছাপ দিয়ে দেবেন।

চিকিৎসকদের সংগঠন ওয়েস্ট বেঙ্গল ডক্টর্স ফোরামের পক্ষ থেকে ডাঃ রেজাউল করিম বলেছেন, এটা নির্বাচনে রিগিংয়ের নতুন পদ্ধতি। তবে রাজ্য মেডিক্যাল কাউন্সিলের নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা রিটার্নিং অফিসার মানস চক্রবর্তী পুরো বিষয়টি খতিয়ে দেখার আশ্বাস দিয়েছেন।

মন্তব্য করুন

Please enter your comment!
Please enter your name here