মাইথন, পাঞ্চেত থেকে জল ছাড়া শুরু করল ডিভিসি

    আরও পড়ুন

    খবরঅনলাইন ডেস্ক: ঠিক যেটা আশঙ্কা করা হচ্ছিল, সেটাই হল। লাগাতার বৃষ্টির কারণে মাইথন এবং পাঞ্চেত জলাধার থেকে জল ছাড়া শুরু করল দামোদর ভ্যালি কর্পোরেশন (ডিভিসি)। তবে এখনই বিপদের কোনো আশঙ্কা নেই বলেই জানিয়েছে ডিভিসি কর্তৃপক্ষ।

    ডিভিসি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন, গত ২৪ ঘণ্টায় মাইথনে ২০৩ মিলিমিটার এবং পাঞ্চেত এলাকায় ৯৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। এর ফলে দু’টি জলাধার থেকে প্রায় ৭ হাজার এবং ১১ হাজার কিউসেক জল ছাড়া হয়েছে।

    Loading videos...

    তবে সেই জল দুর্গাপুর পর্যন্ত পৌঁছনোর আগেই বিভিন্ন কৃষিজমিতে চলে যাবে বলে ডিভিসি কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন। যদিও, বৃষ্টি অব্যাহত থাকলে পরিস্থিতি মোকাবিলার জন্য জল ছাড়ার গতি বাড়ানো হতে পারে বলে ইতিমধ্যেই ইঙ্গিত দিয়েছেন ডিভিসি কর্তৃপক্ষ।

    - Advertisement -

    এতেই চিন্তায় নিম্ন দামোদর এলাকা। কারণ ঝাড়খণ্ড এবং পশ্চিমাঞ্চলের পশ্চিমের জেলাগুলিতে আরও ২-৩ দিন ভারী বৃষ্টির আশঙ্কা রয়েছে। জল ছাড়া যদি বাড়ানো হয়, তা হলে বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হয়ে যেতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

    আসানসোলে বন্যা পরিস্থিতি

    প্রবল বৃষ্টির কারণে আসানসোলে স্থানীয় ভাবে বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হয়ে গিয়েছে। শহরের গাড়ুই এবং‌ নুনিয়া নদীর জল বিপদসীমার উপর দিয়ে বইছে। ডুবে গিয়েছে নদীর তীরের বেশ কিছু ঘরবাড়ি এবং শহর লাগয়ো কৃষিজমি। ইতিমধ্যেই অনেকেই ঘর ছেড়ে উঁচু জায়গায় আশ্রয় নিয়েছেন বলে প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে।

    পশ্চিম বর্ধমানের অতিরিক্ত জেলাশাসক অভিজিৎ সাভলে শুক্রবার বলেন, ‘‘আসানসোল পুরনিগমের অন্তর্গত রেলপাড়, বরাকর এবং দিলদারনগর এলাকায় পরিস্থিতির উপর আমরা নজর রাখছি।’’

    তিনি জানান, প্রশাসনের তরফে ইতিমধ্যেই বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হওয়া বিভিন্ন এলাকায় উদ্ধারকারী দল পাঠানো হয়েছে। তারা দ্রুত ত্রাণ বণ্টনের পাশাপাশি জলে আটকে পড়া বাসিন্দাদের উদ্ধারের জন্যও প্রস্তুতি নিয়েছে

    ঘাটাল নিয়ে উদ্বিগ্ন দেব

    লাগাতার বৃষ্টি চলতে থাকায় পশ্চিম মেদিনীপুরের ঘাটালে বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। ফেসবুকে এই নিয়েই পোস্ট করেছেন স্থানীয় সাংসদ তথা অভিনেতা দেব।

    এ দিন তিনি নিজের পোস্টে লেখেন, “ডিভিসি ব্যারেজ থেকে জল ছাড়ার ফলে মনসুকা এবং ঘাটাল পৌরসভার ১,২,৫,৬,৭,৮,৯,১০,১১ এবং ১২ নম্বর ওয়ার্ডে বন্যা পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে। আমার প্রতিনিধিরা ওখানে রয়েছে এবং আমিও পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছি| প্রশাসনের অক্লান্ত পরিশ্রম ও সহযোগিতার ফলে পরিস্থিতি এই মুহূর্তে আমাদের অনুকূলে আছে| অযথা আতঙ্কিত হবেন না, সকলে সুস্থ ও সুরক্ষিত থাকুন।”

    উল্লেখ্য, ঘাটালে ফি বছরই বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। এ বছর এখনও পর্যন্ত যা ব্যাপক পরিমাণে বৃষ্টি হয়েছে, তাতে ঘাটাল যে জলমগ্ন হবেই, সেটা আন্দাজ করাই যাচ্ছিল।

    আরও পড়তে পারেন জুনের প্রথম ১৮ দিনেই স্বাভাবিকের থেকে ১০৩ শতাংশ বেশি বৃষ্টি পেল দক্ষিণবঙ্গ!

    LEAVE A REPLY

    Please enter your comment!
    Please enter your name here

    This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

    - Advertisement -

    আপডেট খবর